Thursday , March 21 2019
সর্বশেষ
Home / প্রথম পাতা / আমার ক্যাম্পাস / দেশ ভ্রমণে খুবির এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিনের শিক্ষার্থীরা

দেশ ভ্রমণে খুবির এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিনের শিক্ষার্থীরা

খুবি প্রতিবেদক :  দেশ ভ্রমণ সম্পন্ন করেছে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিনের অনার্স শেষ বর্ষের শিক্ষার্থীরা। ১৫ দিনের উৎসবমুখর এই সফরে শিক্ষার্থীরা গাজীপু্র সহ সিলেট বিভাগ ও চট্টগ্রাম বিভাগের বিভিন্ন জেলায় ভ্রমণ করে। শিক্ষার্থীদের ৩৬জন সমন্বিত দলটির সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন ডিসিপ্লিনের অধ্যাপক ড. শামীম আহমেদ কামাল উদ্দিন খান এবং প্রভাষক মারুফ বিল্লাহ।

গত ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ তারিখ দুপুর ২টায় শিক্ষার্থীরা বাসযোগে গাজীপুরের বীজ প্রত্যয়ন এজেন্সী (SCA)-এর উদ্দেশ্যে ক্যাম্পাস ছেড়ে যায়। SCA’তে বিশ্রাম শেষে পরদিন ৪ ফেব্রুয়ারি শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বশেমুরকৃবি) ভ্রমণ করে। বশেমুরকৃবির ডিন (কৃষি অনুষদ) অধ্যাপক ড. এম. মইনুল হক কৃষি অনুষদ ভবনের কনফারেন্স হলে খুবির শিক্ষার্থীদের উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান। তিনি বশেমুরকৃবি’র ইতিহাস ও কার্যক্রম শিক্ষার্থীদের নিকট স্লাইড প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে তুলে ধরেন। পাশাপাশি চলে প্রশ্নোত্তর পর্ব। এরপর শিক্ষার্থীরা বশেমুরকৃবি’র মাঠগবেষণা পরিদর্শন করে।

এরপর দুপুর ১২টায় শিক্ষার্থীরা গাজীপুরে অবস্থিত  SCA ও বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট (BARI)-এর বিভিন্ন ল্যাব পরিদর্শন করে। BARI’র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তারা শিক্ষার্থীদেরকে তাদের কার্যক্রম স্লাইড প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে তুলে ধরেন। রাতে শিক্ষার্থীরা সিলেটের খাদিমনগরের কৃষি প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউট (ATI)-এর উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে।

৫ ফেব্রুয়ারি সিলেটের ATI’তে বিশ্রাম শেষে শিক্ষার্থীরা প্রথমে লালাখালে ভ্রমণ করে। এরপর শিক্ষার্থীরা সিলেটের জৈন্তাপুরে অবস্থিত সাইট্রাস গবেষণা কেন্দ্র পরিদর্শন করে। সংশ্লিষ্ট বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তারা লেবু জাতীয় ফলের জাত উন্নয়নের পাশাপাশি বর্তমানে ড্রাগন ফলের জাত উদ্ভাবনের কাজ করছেন বলে শিক্ষার্থীদের জানান।

সাইট্রাস গবেষণা কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে শিক্ষার্থীরা জাফলং ভ্রমণ করে। পরদিন ৬ ফেব্রুয়ারী শিক্ষার্থীরা সিলেটের বিছনাকান্দি, হযরত শাহ জালাল (রহঃ) ও শাহ পরান (রহঃ)-এর মাজার ভ্রমণ করে। এরপর ৭ ফেব্রুয়ারি শিক্ষার্থীরা মৌলভীবাজারে অবস্থিত মাধবকুন্ড জলপ্রপাত এবং বাংলাদেশ চা গবেষণা ইন্সটিটিউট (BTRI) পরিদর্শন করে। BTRI পরিদর্শন শেষে শিক্ষার্থীরা চট্টগ্রাম বিভাগ ভ্রমণের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে।

৮ ফেব্রুয়ারি খাগড়াছড়ির পাহাড়ি কৃষি গবেষণা কেন্দ্রে শিক্ষার্থীরা বিশ্রাম নেয়া শেষে পরদিন ৯ ফেব্রুয়ারি রাঙামাটির সাজেক ভ্যালির উদ্দেশ্যে চাঁদের গাড়ি যোগে রওনা হয়। সাজেক ভ্রমণ শেষে ১০ তারিখ খাগড়াছড়ির আলু টিলা গুহা এবং হর্টিকালচার পার্কে শিক্ষার্থীরা ভ্রমণ করে। এরপর ধাপে ধাপে বান্দরবানে অবস্থিত তুলা উন্নয়ন বোর্ড, নীলগিরি, শৈলপ্রপাত, নীলাচল, মেঘলা ভ্রমণ শেষে শিক্ষার্থীরা কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে ১৩ ফেব্রুয়ারি রওনা দেয়।

শিক্ষার্থীরা কক্সবাজারে অবস্থিত ইনানি সমুদ্র সৈকত ও হিমছড়ি, সেন্ট মার্টিন দ্বীপ, ছেড়া দ্বীপ ভ্রমণ করে। অবশেষে কক্সবাজারের রামুর স্বর্ণমন্দির ও চট্টগ্রামে অবস্থিত বায়েজিদ (রঃ)-এর মাজার পরিদর্শন শেষে আজ ১৭ ফেব্রুয়ারি রবিবার শিক্ষার্থীরা খুবি ক্যাম্পাসে পৌছে। এই সফর শিক্ষার্থীদের ব্যক্তিগত ও পেশাগত জীবন গঠনে বেশ সহায়ক হবে, এমনটাই মনে করছেন দেশ ভ্রমণে তত্ত্বাবধানকারী শিক্ষকরা।

About Correspondent

Check Also

শেকৃবি উপাচার্য ও শেকৃবিসাসের শুভেচ্ছা বিনিময়

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক, শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় : শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *