Wednesday , February 20 2019
সর্বশেষ
Home / ক্যাম্পাস / সিভাসুতে উৎসবমুখর “কৃষিবিদ দিবস”

সিভাসুতে উৎসবমুখর “কৃষিবিদ দিবস”

মেহেরজান ইসলাম, সিভাসু প্রতিনিধিঃ

আজ ১৩ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৯  “কৃষিবিদ দিবস”। ১৯৭৩ সালের ১৩ই ফেব্রুয়ারি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ এ এক অনুষ্ঠানে কৃষিবিদদের প্রথম শ্রেণীর মর্যাদায় অধিষ্টিত করেন। তারই ধারাবাহিকতায় ২০১০ সাল থেকে বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ ইন্সটিটিউশান এই দিনটিকে আনন্দ-উদ্দীপনার সাথে কৃষিবিদ দিবস হিসেবে পালন করে আসছে।

এই বছরও বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদ তার বিভিন্ন জেলা শাখা সহ দেশের বিভিন্ন কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে দিনটি সুষ্ঠুভাবে পালন করেছে। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি এবং অ্যানিমেল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ে আলোক সজ্জা, আনন্দ শোভাযাত্রা এবং আলোচনাসভা এর মাধ্যমে দিনটি পালিত হয়েছে।

বাংলাদেশ একটি কৃষিপ্রধান দেশ। এই দেশের অর্থনীতিতে একটি বিশেষ ভূমিকা রাখছে এদেশের কৃষকেরা এবং নানা বৈজ্ঞানিক গবেষণা ও প্রযুক্তি উদ্ভাবন করে তাদের সর্বত সাহায্য করে যাচ্ছে কৃষিবিদরাই। বিভিন্ন জাতের খাদ্যশস্যসহ গবাদিপশু পালনের উন্নতিতে এনেছে অপরিসীম পরিবর্তন।

পূর্বে কৃষিবিদগণ এই মহতি পেশায় তাদের শ্রম, মেধা আন্তরিকতার সাথে নিবেদন করলেও তারা তাদের পরিশ্রমের উপযুক্ত সম্মানটুকু পেত না। তারই প্রেক্ষিতে ১৯৭৩সালের ১৩ই ফেব্রুয়ারি দেশের উন্নয়নের কৃষিতে কৃষিবিদদের অবদান চিত্র দেখে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, কৃষিবিদদের ডাক্তার এবং প্রকৌশলীদের সমান মর্যাদা পাবে বলে ঘোষণা করেন।

বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদ, সিভাসু শাখার আহ্বায়ক প্রফেসর ড. মোঃ আলমগীর হোসেন বলেন, “বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদদের মর্যাদাকে সুপ্রতিষ্ঠিত করে গিয়েছেন, জমি দিয়েছেন, রাজনীতিতে দিয়েছেন, গড়ে দিয়েছেন রাজনীতি চিত্তাকর্ষক ভবন, কৃষিবিদ ইন্সটিটিউট। তাই বাংলাদেশকে স্থায়ীভাবে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্রমুক্ত ও অপুষ্টিমুক্ত বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাতে পরিণত করতে জাতির জনকের আদর্শে এবং দেশনেত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে আমাদের সবাইকে একসাথে কাজ করতে হবে। এবারের কৃষিবিদ দিবসে এই হোক আমাদের অঙ্গীকার।”

About Meherjan Islam

Check Also

নোবিপ্রবির ২য় সমাবর্তনে স্বর্ণপদক পাচ্ছেন ১১ জন

মোঃ আল আমীন (আকাশ), নোবিপ্রবি প্রতিনিধি নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (নোবিপ্রবি) ২৪শে ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় …

One comment

  1. এই জায়গাটা ঠিক অর্থবহ হয়নি৷আশাকরি দেখবেন৷
    “বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদদের মর্যাদাকে সুপ্রতিষ্ঠিত করে গিয়েছেন, জমি দিয়েছেন, রাজনীতিতে দিয়েছেন, গড়ে দিয়েছেন রাজনীতি চিত্তাকর্ষক ভবন, কৃষিবিদ ইন্সটিটিউট।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *