Wednesday , February 20 2019
সর্বশেষ
Home / প্রথম পাতা / একজন সফল নারী কৃষি কর্মকর্তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত কৃষিবিদ জাকিয়া সুলতানা

একজন সফল নারী কৃষি কর্মকর্তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত কৃষিবিদ জাকিয়া সুলতানা

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিনের অত্যন্ত জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব ডিসিপ্লিনের প্রথম ব্যাচের (৯৬ ব্যাচ) শিক্ষার্থী কৃষিবিদ জাকিয়া সুলতানা। খুলনাতেই যার বেড়ে ওঠা, খুলনাতেই যার বাস, খুলনাসহ দক্ষিণাঞ্চলের কৃষি উন্নয়নে নিরলস পরিশ্রম করে চলেছেন তিনি।

১৯৭৯ সালে চুয়াডাঙ্গা জেলায় এই সফল কৃষিবিদ জন্মগ্রহণ করেন। ক্রিসেন্ট মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক এবং খুলনা সরকারি বি এল কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর ১৯৯৬ সালে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে পদচারণা শুরু। বর্তমানে তিনি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে (খামারবাড়ি, ঢাকা) অ্যাডিশনাল ডেপুটি ডিরেক্টর (এলআর) হিসেবে কর্মরত আছেন।

কৃষিবিদ জাকিয়া সুলতানার সাক্ষাৎকার নিয়েছেন এগ্রিভিউ২৪.কম এর  প্রতিবেদক ছালেহা খাতুন রিপ্তা।


এগ্রিভিউ২৪.কম :
 খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের 
এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিনের প্রথম ব্যাচের শিক্ষার্থী হিসেবে আপনার অভিজ্ঞতা কেমন ছিলো?

জাকিয়া সুলতানা : ১৯৯৬ সালে গোলাম আলী রফিক স্যারের উদ্যোগে যখন আমাদের ডিসিপ্লিন খোলা হলো, ফরেস্ট্রি ডিসিপ্লিনের আব্দুর রহমান স্যার তখন ডিসিপ্লিন প্রধান ছিলেন এবং ছিলেন ড. মনিরুল ইসলাম স্যার। এরপর পর্যায়ক্রমে আসলেন সঞ্জয় স্যার, কুদ্দুস স্যার, ইয়াসিন স্যার। এভাবেই এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিন প্রথম যাত্রা শুরু করে। তখন না ছিলো নির্দিষ্ট ক্লাসরুম, না ছিলো ল্যাব ফ্যাসিলিটি। রাস্তার ওপাশে ছোট্ট একটু জায়গায় আমরা ফিল্ড ওয়ার্ক শুরু করি। যেহেতু আমরা একদম প্রথম ব্যাচ, টিচাররা সবাই আমাদেরকে নিজের সন্তানের মতো গাইড করেছেন, সেভাবেই ভালোবেসেছেন। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো প্রথম ব্যাচের শিক্ষার্থী হিসেবে নিজেদের নবীনবরণের আয়োজন নিজেরাই করেছিলাম এবং সেই অনুষ্ঠানে তৎকালীন কৃষি মন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এসেছিলেন।

ছবি : সংগৃহীত

এগ্রিভিউ২৪.কম :  গ্রাজুয়েশন এর পর পরিকল্পনা কেমন ছিলো ?

জাকিয়া সুলতানা :  ২০০০ সালে গ্রাজুয়েশন শেষ করার পর মাস্টার্স এর জন্য ভর্তি হয়েছিলাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে জেনেটিক্স এন্ড প্লান্ট ব্রিডিং বিষয়ে।

এগ্রিভিউ২৪.কম : চাকরিতে যোগদানের ইচ্ছে আগে থেকেই ছিলো কিনা ?

জাকিয়া সুলতানা : ছেলেবেলা থেকেই মা চাইতেন আমার মেয়ে চাকরি করবে। স্বাবলম্বী হবে। অনুপ্রেরণা পরিবার থেকেই। মাস্টার্স শেষ করার পর ইচ্ছা ছিলো ইনশাআল্লাহ একটা সরকারি চাকরি হয়ে যাবে। তারপর প্রিলি হলো, প্রিলির পরে রিটেন হলো, তারপর একটা মনস্তাত্ত্বিক পরীক্ষা হলো, তারপর মেডিকেল। ২৫ তম বিসিএসে কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করি গোপালগঞ্জ সদরে।

এগ্রিভিউ২৪.কম : সফলতার এমন সুদীর্ঘ পথ অতিক্রম করতে কখনো কোন বাধা বিঘ্নের সম্মুখীন হয়েছিলেন কিনা, পেছনের গল্প টা কি ?

জাকিয়া সুলতানা : আমাদের দেশে যেটা হয়, মেয়ে ক্লাস ৯-১০ এ উঠলেই পাড়াপ্রতিবেশী, আত্মীয়স্বজন বলতে শুরু করে মেয়ে বড় হয়েছে, বিয়ে দিয়ে দেন। আমার পরিবার থেকে এমন কোনো প্রেশার আসেনি৷ বরং পরিবারের সমর্থন আমাকে আরও সাহায্য করেছে। এমনকি চাকরিতে যোগদানের সময় বড় সন্তানের বয়স তিন মাস। তখন আমার মা আমাকে বিশেষ ভাবে সহায়তা করেন৷ আমি যখন সারাদিন অফিসে থাকতাম৷ তখন আমার মা সকালে গোপালগঞ্জ যেতেন, সারাদিন থাকতেন, সন্ধ্যায় ফিরে আসতেন। তখন খুলনা আসার জন্য চিন্তা করতে থাকি৷ সেখান থেকে ২০০৮ সালে দিঘলীয়া এবং ২০১০ সালে দৌলতপুর এটিআই’তে যোগদান করি।

ছবি : সংগৃহীত

এগ্রিভিউ২৪.কম :  সম্প্রতি খুবিতে পিএইচডি করছেন। পিএইচডি করার চিন্তা কিভাবে এসেছে?

জাকিয়া সুলতানা : ২০১০ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত খুলনা মেট্রোপলিটন কৃষি অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করারা পর অনুভব করলাম দক্ষিনাঞ্চলের কৃষিকে আরও কিভাবে সমৃদ্ধ করা যায়। সেই অনুপ্রেরণা থেকেই খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্লান্ট ব্রিডিং বিষয়ে পিএইচডি ডিগ্রি নেয়ার ইচ্ছেটা এসেছে।

এগ্রিভিউ২৪.কম :  আপনার পিএইচডি এর বিষয় সম্পর্কে জানতে চাই।

জাকিয়া সুলতানা :  আমার পিএইচডি এর বিষয় হলো “Germplasm Evaluation and Selection of Cashew for Southwestern Bangladesh”। মূলত আমাদের দেশের জলবায়ু অনুসারে এখানে যদি কাজুবাদামের উপযোগী জাত উদ্ভাবন করা যায়, তবে খুলনা সহ দক্ষিনাঞ্চলের কৃষিতে যুগান্তকারী পরিবর্তন আনা সম্ভব। পাশাপাশি অনেক মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ ঘটবে।

এগ্রিভিউ২৪.কম :  আগামী দিনে আপনার প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকুক সেই সাথে উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করছি।

জাকিয়া সুলতানা :  ধন্যবাদ।

About Nur E Kutubul Alam

Agri Journalist | Future Farmer | Student

Check Also

রাসায়নিক দূষণ মুক্ত নিরাপদ ব্রয়লার উৎপাদনে খামারীদের সাথে ক্যাব’র তৃণমূল সভা অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ব্রয়লার মুরগি উৎপাদনে জীব ধারনামুলক নিরাপত্তা, কাঠামোগত নিরাপত্তা ও প্রায়োগিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *