Saturday , February 23 2019
সর্বশেষ
Home / প্রথম পাতা / ডেইরী শিল্পে সফলতার অপর নাম “কৃষিবিদ ডেইরী ফার্ম”

ডেইরী শিল্পে সফলতার অপর নাম “কৃষিবিদ ডেইরী ফার্ম”

অনিক অাহমেদ, সাভার, ঢাকা: দেশের ক্রমবর্ধমান মানুষের প্রাণিজ অামিষের চাহিদা পূরণে ব্যাপক ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে দেশের ডেইরী ও পোল্ট্রি ফার্মগুলো। প্রাণিজ অামিষের চাহিদার সিংহভাগ পূরণ হয় এসব ফার্ম থেকেই। বিগত বছরগুলোতে পোল্ট্রি খামারীরা ব্যাপক লোকসানের সম্মুখীন হওয়ায় অনেক ক্ষেত্রে এখন দেখা যাচ্ছে তারা ডেইরী সেক্টরের দিকে অাগ্রহী হচ্ছেন। অাশেপাশের বিভিন্ন এলাকায় খোজখবর নিলে এসব কথার প্রমাণ মিলবে।

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার সাভার উপজেলার বিরুলিয়া গ্রামে অবস্থিত কৃষিবিদ গ্রুপ। দেশের প্রয়োজন ও মানুষের কল্যাণের কথা বিবেচনা করে কৃষিবিদ গ্রুপের নেয়া ৪৩ টি প্রজেক্টের অন্যতম একটি হলো ডেইরী ফার্ম। তাদের প্রতিষ্ঠিত ডেইরী ফার্মের নাম “কৃষিবিদ ডেইরী ফার্ম”। সাভার উপজেলায় প্রাণিজ অামিষের উৎস হিসেবে দুধের চাহিদা পূরণে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখছে এই ডেইরী ফার্মটি।

২০০৯ সালে হলস্টেইন ফ্রিজিয়ান জাতের কয়েকটি গাভী নিয়ে শুরু হয় কৃষিবিদ ডেইরী ফার্মের যাত্রা। বর্তমানে এই ফার্মে ৯ টি শেডে ১২০ এর অধিক গরু রয়েছে। গাভী, বাচ্চা, ষাড়সহ বিভিন্ন ধরণের গরুর জন্য রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন শেড। পুরো ফার্মের ব্যবস্থাপনা বিজ্ঞানসম্মত এবং অত্যন্ত সাজানো গোছানো। ফার্মের পানি, বর্জ্য নিষ্কাশন ব্যবস্থাপনাও অত্যন্ত সুন্দর ও পরিপাটি।

ফার্মের বিভিন্ন দিক নিয়ে কথা হয় ম্যানেজার মো: ইবরাহিম সাহেবের সাথে। দীর্ঘ অালাপচারিতায় তিনি এগ্রিভিউ টোয়েন্টিফোরকে জানান, “অামি এখানে ২০১১ সালে যোগদান করি যখন ছিল ফার্মের শুরুর সময়। বর্তমানে ফার্মটা যতটা সুপ্রতিষ্ঠিত দেখা যাচ্ছে, শুরুর দিকে এমনটা ছিলনা। শুরুতে অ্যানথ্রাক্স রোগে অাক্রান্ত হয়ে ৩-৪ টি গরু মারা যায়। এরপর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার দিক-নির্দেশনা অনুসরণ করে এ রোগের হাত থেকে ফার্মটাকে রক্ষা করি।”

বর্তমানে ফার্ম থেকে প্রতিদিন প্রায় সাড়ে চারশ লিটার দুধ উৎপাদন হচ্ছে যা সাভারে অবস্থিত তাদের নিজস্ব দোকানে সরবরাহ করা হয়। এছাড়া বিভিন্ন স্থান থেকে দুধের ক্রেতারা এসে দুধ কিনে নিয়ে যান। এক্ষেত্রে প্রতি কেজি দুধ ৭০ টাকা দরে বিক্রি করা হয়। ফার্মের গাভীর সবুজ ঘাসের যোগান দিতে ফার্মের সন্নিকটেই চাষ করা হয়েছে হয়েছে নেপিয়ার ও সুদান ঘাসের। বর্তমানে এখানে ১০ জন শ্রমিক কাজ করে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করছেন। সকল খরচ বাদ দিয়ে প্রতিমাসে প্রায় দুই থেকে অাড়াই লাখ টাকা লাভ হয় এই ফার্ম থেকে – জানান ফার্মের ম্যানেজার।

নিয়মিক ভ্যাক্সিনেশন এবং অন্যান্য শিডিউল মেনে চলার কারনে বর্তমানে ডেইরী ফার্মে তেমন কোনো রোগ-বালাই হয়না বললেই চলে। যদিওবা ছোটখাট কোনো রোগের লক্ষণ দেয়া যায়, সেক্ষেত্রে অাগে থেকেই প্রস্তুত রয়েছে প্রয়োজনীয় বিভিন্ন মেডিসিন এবং ভ্যাক্সিন।

ইন্টার্ণশীপসহ বিভিন্ন উদ্দেশ্যে দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে ভেটেরিনারি শিক্ষার্থীরা এই ফার্ম পরিদর্শনে অাসেন। এছাড়া বেকার যুবকেরা তাদের কর্মসংস্থানের জন্য ডেইরী ফার্ম গঠনে বিভিন্ন পরামর্শও নিয়ে থাকেন এখান থেকে।

উল্লেখ্য, কৃষিবিদ গ্রুপের নেয়া ৪৩ টি প্রজেক্টের অন্যতম প্রজেক্টগুলো হলো ডেইরী, পোল্ট্রি, ফিসারিজ, টিস্যু কালচার, স্কুল ইত্যাদি। কৃষিবিদ গ্রুপের এসব প্রজেক্ট বাস্তবায়নের মাধ্যমে তাদের অগ্রযাত্রা ত্বরাণিত হওয়ার পাশাপাশি দেশ ও জাতির সার্বিক উন্নতি সাধিত হবে – এমনটাই প্রত্যাশা সর্বসাধারণের।

About Anik Ahmed

Check Also

থমকে গেছে শাহ আজিমের ডেইরি ফার্ম স্বপ্ন…

নিজস্ব প্রতিবেদক : ডেইরি খামার করে সফলতার মুখ দেখা খামারির সংখ্যা যেমন অসংখ্য তেমনি খামার করে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *