Wednesday , November 21 2018
সর্বশেষ
Home / পোলট্রি / পোল্ট্রি প্রফেশনালস বাংলাদেশ এর আয়োজনে ঢাকায় পোল্ট্রি সেমিনার অনুষ্ঠিত

পোল্ট্রি প্রফেশনালস বাংলাদেশ এর আয়োজনে ঢাকায় পোল্ট্রি সেমিনার অনুষ্ঠিত

ডা. মো. মোস্তাফিজুর রহমান, উপসম্পাদকঃ পোল্ট্রি উৎপাদনের সবচেয়ে খরচ হয় ফিডে। তাই পোল্ট্রি শিল্পকে লাভজনক করে টিকিয়ে রাখতে ফিড খরচ কমানো একটি বড় চ্যানেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় করনীয় ও কৌশল নিয়ে সেমিনার করেছে পোল্ট্রি প্রোফেশনালস বাংলাদেশ। আজ শনিবার রাজধানীর কৃষিবিদ ইন্সটিটিউটশন বাংলাদেশের সেমিনার কক্ষে “Feed Cost Challenges: Application of Biotechnological Tools can be an Approach”  বিষয়ক সারাদিন ব্যাপী এই সেমিনার অনুষ্ঠিত  হয়। অনুষ্ঠানে বক্তাগন ফিডের খরচ কমাতে নানা পরামর্শ ও মতবিনিময় করেন।

সেমিনারের প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কৃষিবিদ জনাব মোহাম্মদ লুতফর রহমান (সিইও,  এজি এগ্রো ইন্ড্রাস্ট্রিজ) । শুভেচ্ছা বক্তব্যে তিনি বলেন, যখন বাংলাদেশে পোল্ট্রি শুরু হয় তখন পথটা সহজ ছিলনা। নানা প্রতিকুলতা ও সমস্যা অতিক্রম করে পোল্ট্রি আজ শিল্পে পরিণত হয়েছে৷ যা প্রতেক্ষ্য ও পরোক্ষভাবে প্রায় ১ কোটি মানুষের রুজির ব্যবস্থা হয়েছে। কিন্তু বর্তমানে সুনির্দিষ্ট আইন কানুন না থাকায় বিদেশী কোম্পানী গুলো তাদের বেশি বিনিয়গের ফলে দেশীর মার্কেট দখল করছে। তাদের উদ্দেশ্য সফল হলে ছোট ও মাঝারি ধরণের খামারী ও পোল্ট্রি শিল্পের সাথে জড়িত ব্যবসায়ীদের মারাত্বক ক্ষতি হয়ে যাবে। সামনের দিনের এমন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বলিষ্ট ভূমিকা রাখতে হবে। পোল্ট্রি প্রফেশনালই বাংলাদেশের এমন আয়োজনের ভুয়সী প্রশংসা করে তিনি আরো বলেন, পোল্ট্রি শিল্পের সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকলে দেশের পোল্ট্রির বিকাশ ঘটানো সম্ভব।

সেমিনারে “The Road To Health Is paved With Good Intestine” বিষয়ের উপর প্রধান কী নোট উপস্থাপন করে ডা.প্রদীপ ক্রিসনান ( Dr. Pradeep Krishnan)। তিনি পোল্ট্রি শিল্পে সফলতার জন্য মুরগীর পাকস্থলী বা গাট হেলথ এর গুরুত্ব তুলে ধরেন। নানা কর্মসূচি ও পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে তা উন্নত রাখাতে বিশেষ গুরুত্ব প্রদান করেন।

তিনি বলেন, পুষ্টির সাথে স্বাস্থ্যের গভীর সম্পর্ক বিদ্যামান। যদি পুষ্টি ঠিকমত সরবরাহ না হয়ে তাহলেও সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে। তেমনি পুষ্টি বা ফিডের সঠিক ভাবে অন্ত্রে শোষিত না হলেও স্বাস্থ্যের ব্যাঘাত ঘটতে পারে৷ তিনি পুষ্টি উপাদান, মুরগীর শারীরিক ও পরিবেশের অবস্থা বিবেচনা করে খাদ্যের মান ও নিরাপত্ত্বার দিকে খেয়াল স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে হয়।
মুরগীর সঠিক উৎপাদন ও বৃদ্ধি ধরে রাখতে শুধুমাত্র পুষ্টি বা স্বাস্থ্য ঠিক রাখলেই হবেনা। বরং পালনের প্রতিটি পর্যায়ে সঠিক বায়োসিকিউরিটি মেনে ফার্ম পরিচালনা করতে হবে।

মুরগীর খাবার পানিকে সর্বোচ্চ গুরুত্বের সাথে রেখে ভাল মানের নিরাপদ পানি খাওয়ানোর ব্যপারে পরামর্শ দেন। যদি পানি ভাল না হয় তাহলে যে কোন সময় মুরগীর স্বাস্থ্যের ক্ষতি হতে পারে।

বর্তমানে এন্টিবায়োটিক মুক্ত মুরগী পালনের ব্যাপারে তিনি বলেন, এন্টিবায়োটিক মুক্ত নয় বরং অপ্রয়োজনীয় এন্টিবায়োটিক মুক্তভাবে পোল্ট্রি উৎপাদন করতে হবে। এন্টিবায়োটিক জীবন রক্ষার হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করতেই হবে। মুরগী অসুস্থ্য হলে তার চিকিৎসায় এন্টিবায়োটিক ব্যবহার না করলে তা হবে পোল্ট্রির ওয়েলফেয়ারের সাথে সাংঘর্ষিক।

তিনি ফিডের প্রতিটি উপাদান যথাযথভাবে ও ভাল মানের সরবরাহ করার পরামর্শ প্রদান করেন৷ প্রোবায়োটিক ব্যবহারের ক্ষেত্রে জেনে বুঝে উপযুক্ত প্রোবায়োটিক ব্যবহার করে মুরগীর গাট হেলথ ভাল রেখে পোল্ট্রির উৎপাদন ভাল করা সম্ভব বলে জানান তিনি।

ভেটেরিনারিয়ানদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, খামারের সকল স্থরের বায়োসিকিউরিটির উপর নজর রাখতে হবে। তা সঠিক মাত্রায় রাখতে নিয়মিত খামারীদের পরামর্শ প্রদান করতে হবে।

মধ্যহ্ন ভোজনের পর ফিড খরচ কমানোর কৌশল বা পদক্ষেপ কি হতে পারে তার উপর বিস্তারিত আলোচনা করেন, বাংলাদেশের স্বনামধন্য পোল্ট্রি কনসালটেন্ট ও পোল্ট্রি প্রফেশনালস বাংলাদেশের সমন্বয়ক কৃষিবিদ মোঃ অঞ্জন মজুমদার । তিনি খুব সুন্দর ভাবে ফিডের খরচ বৃদ্ধির কারণ, বাংলাদেশের প্রেক্ষিত নানা সমস্যা ও সমাধানের উপর বিস্তারিত আলোকপাত করেন।

তিনি বিভিন্ন পর্যায়ে ফিডের মান ধরে রাখতে ও খরচ নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য বিশেষ কিছু কৌশল তুলে ধরেন। তিনি ফিড খরচ কমাতে অপটিমাইজেশনের উপর বিশেষ গুরুত্ব প্রদান করেন, ভিটামিন মিনারেল, এমাইনো এসিড ও এনজাইমের উপযুক্ত ও যথাযথ পরিমাণ নিশ্চিত করে ফিড প্রস্তুতের পরামর্শ প্রদান করেন । পোল্ট্রি বিজনেস টিকিয়ে রাখতে এবং নতুনদের এই সেক্টরে আগ্রহী করে তুলতে দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেন। তিনি পোল্ট্রি শিল্পকে আরো সামনের দিকে নিয়ে যেতে সবাইকে নিয়ে কাজ করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন ।

বিকেলে বিভিন্ন বিষয়ে অভিজ্ঞ পোল্ট্রি প্যাকটিশনারদের নিয়ে উন্মুক্ত প্রশ্নোত্তর ও আলোচনার ব্যবস্থা করা হয়। এই সময় বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও পোল্ট্রি শিল্পের সাথে জড়িত অভিজ্ঞ ব্যক্তিবর্গ প্রশ্নের উত্তর প্রদান করেন।

দিন ব্যাপী এই সেমিনারে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পোল্ট্রি শিল্পের সাথে সম্পৃক্ত প্রায় ১৫০ জন অংশগ্রহণ করেন। দেশের অনেক পোল্ট্রি ব্যবসায়ী উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। সামনে এই ধরণের আরো সেমিনারের আয়োজন করা হবে বলে জানান পিপিবি এর নেতৃবৃন্দ।

About Mostafizur Rahman

Check Also

ডেইরী শিল্পে সফলতার অপর নাম “কৃষিবিদ ডেইরী ফার্ম”

অনিক অাহমেদ, সাভার, ঢাকা: দেশের ক্রমবর্ধমান মানুষের প্রাণিজ অামিষের চাহিদা পূরণে ব্যাপক ভূমিকা পালন করে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *