Wednesday , November 21 2018
সর্বশেষ
Home / পাঁচমিশালি / চট্টগ্রাম ট্যুরে অামরা ১১ জন: পর্ব-২

চট্টগ্রাম ট্যুরে অামরা ১১ জন: পর্ব-২

অনিক অাহমেদ, গণ বিশ্ববিদ্যালয়, সাভার, ঢাকা:  হোটেলে ফিরলাম সন্ধ্যার পরপরই। হালকা নাস্তা সেরে বের হলাম সীতাকুন্ড শহরটা একটা ঘুরে দেখার জন্য। উল্লেখ্য, চট্টগ্রাম অামার সবচেয়ে প্রিয় শহর হওয়ার কারণে অাগ্রহটা একটু বেশিই ছিল অামার। যাইহোক, ঘোরাঘুরি শেষে রাতের খাবার শেষ করে ৯:৩০ টার দিকে হোটেলে ফিরলাম। একটু অাগেভাগেই ফিরেছিলাম, কারণ ঐ রাতে (২৬ জুন দিবাগত রাত) বিশ্বকাপ ফুটবলের অার্জেন্টিনা বনাম নাইজেরিয়ার মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ ছিল। রাতে সবাই মিলে মজা করে খেলা দেখেছিলাম। বহু চড়াই উৎড়াই পেড়িয়ে কষ্টের জয়ে অার্জেন্টিনা সেদিন দ্বিতীয় পর্বের টিকিট পেয়েছিল।

সকালে সবাই ঘুম থেকে একটু দেরী করে উঠলাম। কারণ রাত জেগে খেলা দেখার প্রভাব ঘুমের উপর পড়েছিল। যাইহোক, সকালের নাস্তা শেষ করে অামাদের পরবর্তী অন্যতম এবং সম্ভবত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অাকর্ষণ ‘চন্দ্রনাথ পাহাড়’ এর দিকে রওনা হলাম। সকাল সাড়ে ৯ টায় পাহাড়ের পাদদেশস্থ দোকান থেকে দশ টাকার বিনিময়ে প্রত্যেকে একটি করে লাঠি কিনে নিলাম, পাহাড়ে উঠতে যেটা অাপনাকে অসম্ভব সাহায্য করবে। চন্দ্রনাথ পাহাড়ের শীর্ষদেশে উঠতে সাধারণত দেড় থেকে দুই ঘন্টা লাগে। কিন্তু যৌবনের টগবগানো রক্তে সকল বাধা পেড়িয়ে অামরা সেদিন মাত্র ৫০ মিনিটে সেই পথ অতিক্রম করেছিলাম। প্রধান কারণ ছিল অামরা বিশ্রাম খুব কম নিয়েছিলাম, যেটা অন্য ভ্রমনার্থীরা বেশি নেয়।

পাহাড়ের চূড়ায় রয়েছে মন্দির, যেটা চন্দ্রনাথ মন্দির নামে পরিচিত। পাহাড়ের মাথায় উঠে ভাগ্য সুপ্রসন্ন হলে অাপনি মেঘের দেখাও পেতে পারেন। তবে, অামাদের ভাগ্যে সেদিন মেঘের দেখা মেলেনি। কিন্তু তাতে কি, পাহাড়ের শীর্ষদেশে উঠে নিজেকে যেন মনে হচ্ছিল এভারেষ্ট জয় করা মুসা ইব্রাহিম কিংবা নিশাত মজুমদার। সময়টা ছিল তখন স্বপ্নের মত। অন্যরকম এক অানন্দ দোলা দিচ্ছিল মনের মাঝে। সেই অানন্দটা সেদিন নিজেদের মাঝে বিলিয়ে দিতে ভুল করিনি। পাহাড়ের চূড়ায় দাড়িয়ে যেন অামরা পুরো চট্টগ্রামকে হাতের মুঠোয় দেখছিলাম। সৌন্দর্য দেখে বিমোহিত হয়ে ভাবছিলাম, মহান অাল্লাহ রাব্বুল অালামিন যেন নিজ হাতে চট্টগ্রামকে তিলে তিলে গড়ে তুলেছেন।

পাহাড়ের সৌন্দর্য উপভোগ করতে গিয়ে বিমোহিত বনে যাওয়া অামাদের বন্ধু ইমরান অাবেগাপ্লুত হয়ে বলেন, “এত সুন্দর সৃষ্টি অাল্লাহর চোখে না দেখলে বিশ্বাস করা যায় না। পড়ালেখার পাশাপাশি এসব সফর পরোক্ষভাবে পড়ালেখার গতি অানতে সাহায্য করে। শুধুমাত্র পুথিগত জ্ঞান দিয়ে সবকিছু হয়না, পড়ালেখাকে হজম করার জন্য মাঝে মাঝে শিক্ষনীয় এসব ট্যুর খুবই সহায়তা করে।” মনের খোরাক মেটাতে এ ধরনের ট্যুর খুবই কার্যকরী বলে জানান ইমরান।

ট্যুরের মহামূল্যবান সময় হতে একটি ঘন্টা চন্দ্রনাথ পাহাড়ে ব্যয় করে সীতাকুন্ড অভিযান শেষ করলাম। অামাদের পরবর্তী যাত্রা মিরসরাই। সেখানে অামাদের অাকর্ষণ খৈয়াছড়া ঝর্ণা এবং মহামায়া লেক। অাকর্ষণীয় মিরসরাই পর্বের জন্য অাপনাদের অপেক্ষা করতে হবে শেষ পর্বের জন্য। ততক্ষণের জন্য অাল্লাহ হাফেজ।

About Anik Ahmed

Check Also

ডেইরী শিল্পে সফলতার অপর নাম “কৃষিবিদ ডেইরী ফার্ম”

অনিক অাহমেদ, সাভার, ঢাকা: দেশের ক্রমবর্ধমান মানুষের প্রাণিজ অামিষের চাহিদা পূরণে ব্যাপক ভূমিকা পালন করে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *