Wednesday , November 21 2018
সর্বশেষ
Home / প্রথম পাতা / একজন চেঞ্জমেকার ভেটেরিনারি সার্জনের গল্প

একজন চেঞ্জমেকার ভেটেরিনারি সার্জনের গল্প

কোথায় রাঙামাটি আর কোথায় সুনামগঞ্জ জেলার হাওড়বেষ্ঠিত উপজেলা তাহিরপুর। দুই বছরের বেশি সময় ধরে নিজ এলাকা ছেড়ে এই এতো দূরে হাওড়ের খামারিদের সুখ-দু:খের সাথি এখন। ইন্টার্ণশীপ থাকা অবস্থায় কিংবা এখনো বিভিন্ন কাজে উপজেলা প্রাণি সম্পদ হাসপাতাল গুলোতে যাওয়া হয়। হাসপাতালগুলোর ভেটেরিনারি সার্জন কিংবা উপজেলা লাইভস্টোক অফিসারের অফিস কক্ষ দেখে ভয় লাগে, এটা কি আদৌ কোন প্রথম শ্রেনীর কর্মকর্তার কার্যালয় !

অনেকেই স্রেফ দুর্ভাগ্য ভেবে এভাবেই মেনে নেন। যেমনটি দেখেছি জকিগঞ্জ ভেটেরিনারি হাসপাতালে। কিন্তু তাহিরপুরের মতো হাওড় বেষ্ঠিত এলাকায় এসে ভেটেরিনারি সার্জনের কক্ষ এতো ছিমছাম ,ডিজিটালাইজড পাব, কল্পনাও করতে পারিনি। অফিসের ভিতরেই আধুনিক কম্পিউটার, প্রিন্টার সহ নানা সুবিধা।

তাহিরপুর প্রাণি সম্পদ দপ্তরও ব্যতিক্রম ছিল না। এলেমেলো ,গড়পড়তা গ্রামের এলাকার ভেটেরিনারি হাসপাতাল যেমন থাকে তেমনই ছিল। যার দুই বছরেরও বেশি সময়ের পরিশ্রমে আজকের এই অবস্থা, তিনি হলেন ডা. সমাপন চাকমা।

অফিসে নেই উপজেলা লাইভস্টোক অফিসার, ভেটেরিনারি ফিল্ড এসিসট্যান্ট কেউই। তাতে কি? তিনি থেমে থাকেননি, প্রত্যেকটি ইউনিয়নের মানুষ যাতে প্রাণিসম্পদ দপ্তরের সুযোগ সুবিধা পায় সেজন্য স্থানীয় এ আই কর্মী কিংবা লাইভস্টোকে ট্রেনিং প্রাপ্তদের নিয়ে গড়ে তুলেছেন নেটওয়ার্ক ।তিনি বুঝতে পেরেছিলেন একা সব সামলানো যাবে না আবার খামারিরাও যেন সেবা থেকে বঞ্চিত না হোন। তিনি বিশ্রাম নেন খুব কমই। জটিল সব রোগের চিকিৎসা, পরামর্শ, ট্রেনিং, দাপ্তরিক কাজ সব সামলাতে হয় একাই।

হাওড় এলাকা, ঘাসের সংকট লেগেই আছে। খামারিদের যাতে নেপিয়ার কাটিং দেওয়া যায় সেজন্য প্রাণিসম্পদ সপ্তরের সামনেই নেপিয়ার ঘাসের বাগান করেছেন।

উনার উপর খুবই সন্তুষ্ট এলাকার খামারিরা। একজন খামারি রজব আলী বলছিলেন, “এতো ভালো মানুষ পাওয়া আমাদের জন্য সৌভাগ্য “।

অনেকেই এ রকম দুর্গম জায়গায় পোস্টিং পেলে স্রোতের সাথে গা এলিয়ে দেন, সময়ের অপেক্ষায় থাকেন কখন পোস্টিং পরিবর্তন হবে।

ডা . চাকমার মতে এটিও পলিসি মেকারদের ভুল সিদ্ধান্ত। যার যার নিজ এলাকায় কিংবা আশেপাশের উপিজেলায় পোস্টিং হলে সবাই ভালো কাজ করতো। পোস্টিং পরিবর্তন নিয়ে চিন্তা করতে হতো না। তিনিও পোস্টিং পরিবর্তন করতে চান। কিন্তু যেখানেই যতদিনের জন্যই থাকবেন, নিজের সেরাটা দিয়ে যাবেন।

এ রকম স্মার্ট ভেট খুব কম দেখেছি আমি। খামারিদের কথা শুনে, নিজ চোখে দেখে একজন চেঞ্জ মেকারকে চেনা কঠিন হয়নি।


ডা. মনজুর কাদের চৌধুরী

(প্রকাশক)

About Publisher

Check Also

ডেইরী শিল্পে সফলতার অপর নাম “কৃষিবিদ ডেইরী ফার্ম”

অনিক অাহমেদ, সাভার, ঢাকা: দেশের ক্রমবর্ধমান মানুষের প্রাণিজ অামিষের চাহিদা পূরণে ব্যাপক ভূমিকা পালন করে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *