Wednesday , November 21 2018
সর্বশেষ
Home / ক্যাম্পাস / সিভাসুতে অনুষ্ঠিত হলো “টেকনিকস্ ফর দ্য প্রিপারেশান অব প্লাস্টিনেটেড অর্গানস্ ফর দ্য এনাটমি মিউজিয়াম” শীর্ষক কর্মশালা

সিভাসুতে অনুষ্ঠিত হলো “টেকনিকস্ ফর দ্য প্রিপারেশান অব প্লাস্টিনেটেড অর্গানস্ ফর দ্য এনাটমি মিউজিয়াম” শীর্ষক কর্মশালা

মেহেরজান ইসলাম, সিভাসু প্রতিনিধিঃ

গত ১৩সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি এন্ড অ্যানিমেল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় এ “টেকনিকস্ ফর্ দ্য প্রিপারেশান অব্ প্লাসিটিনেটেড অর্গানস্ ফর দ্য এনাটমি মিউজিয়াম” শীর্ষক একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

সিভাসুতে ৬০টি প্রাণী কঙ্কাল, ৩০টি স্টাফিং স্যাম্পল, ৫০০ এর অধিক প্রাণীদেহ থেকে আহরিত বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ এবং সহস্রাধিক প্রাণীঅস্থি বিশিষ্ট একটি আধুনিক বিশেষায়িত এনাটমি মিউজিয়াম রয়েছে। বাংলাদেশের সর্বপ্রথম সমৃদ্ধ এনাটমি মিউজিয়াম। ক্রমান্বয়ে চলছে এই এনাটমি মিউজিয়ামের উন্নয়ন কার্যক্রম।

তারই ধারাবাহিকতায় প্লাস্টিনেটেড অর্গান তৈরীর একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন হতে চলেছে। প্লাস্টিনেটেড অর্গানস্ অথবা প্লাস্টিনেটেড মডেল বলতে বোঝায় একটি অ্যানিমেল বডিকে অথবা অ্যানিমেল বডি পার্ট থেকে পানি ও ফ্যাট কে আলাদা করে বিভিন্ন ক্যামিকেল প্রসেসিং এর মাধ্যমে বছরের পর বছর সংরক্ষিত মডেল, যা পুরোপুরি অরিজিনাল অ্যানিমেল বডি অথবা বডিপার্টের মতোই থেকে যায়।

এই ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণের মূল উদ্দেশ্য হলো, এখন শিক্ষার্থীদের শেখার জন্যে এনিম্যাল বডি অথবা বডি পার্টস্ কে ফরমালিন সহ বিভিন্ন ক্যামিকেলে সংরক্ষণ করে রাখা হয়। যা অনেকাংশেই কার্সিনোজেনিক এবং স্বাস্থ্য হানিকর। তাছাড়া এই স্যাম্পল গুলো থেকে অনেক গন্ধ সহ শিক্ষার্থীদের চোখে জ্বালাপোড়া, পানিপড়া সহ বিভিন্ন ধরনের অসুবিধা পোহাতে হয়। এই দিকগুলো বিবেচনা করেই এই প্লাস্টিনেশান প্রসেসিং এর প্রকল্প প্রণয়ন চলছে। এই প্রকল্পের পরিচালক ড. লুৎফর রহমান, প্রফেসর ডিপার্টমেন্ট অব এনাটমি এন্ড হিস্টোলজি।

অনুষ্ঠানটির প্রধান পৃষ্ঠপোষকতায় ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমান উপাচার্য প্রফেসর ড. গৌতম বুদ্ধ দাশ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন সিভাসু’র প্রতিষ্ঠাতা উপাচার্য প্রফেসর ড. নীতীশ চন্দ্র দেবনাথ, প্রফেসর ড. আবুল কাসেম, প্রফেসর ড. মো. আঃ হালিম। প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ইউজিসি চেয়ারম্যান প্রফেসর আব্দুল মান্নান। প্রফেসর ড. লুৎফর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটিতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রফেসর ড. মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দীন।

“শিক্ষিত তরুণদের নিজেদের দক্ষতা শানিত করতে হবে। দক্ষতা বৃদ্ধি করতে পারলে চাকরি নিয়ে চিন্তা করতে হবেনা। তাছাড়া পরিবর্তিত বিশ্বে টিকে থাকার জন্যে দক্ষতা বৃদ্ধির কোনো বিকল্প নেই।” বলেন ইউজিসি চেয়ারম্যান প্রফেসর আব্দুল মান্নান।

কর্মশালায় ৪টি টেকনিক্যাল সেশনে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকবৃন্দ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্প্রতি ইন্টার্ন শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

ইউজিসি চেয়ারম্যান প্রফেসর আব্দুল মান্নান বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিশ্বব্যাংক ও বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে পরিচালিত উচ্চশিক্ষা মানোন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমের ২৪০মিলিয়ন ডলার ব্যয় করা হয়েছে। আগামী ডিসেম্বরে উক্ত প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হবে। আমি মঞ্জুরী কমিশনে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণের সময় এই প্রকল্পের সফলতার হার ছিলো ৪২শতাংশ। বর্তমানে এই হার ৯২শতাংশ

তিনি আরো বলেন, “যেকোন পরিকল্পনা প্রণয়নে বিশেষ করে শিক্ষাক্ষেত্রে উদ্যোগ গ্রহণের সময় গুরুত্ব দিতে হবে আপনি বাংলাদেশকে কোথায় দেখতে চান? অন্যথায় এই লক্ষ্যচুতি ঘটতে পারে। বর্তমান সরকার শিক্ষার মানন্নোয়নে যে অগ্রাধিকার দিয়েছে অতীতে তা কখনো দেখা যায়নি উল্লেখ করে ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, উচ্চশিক্ষার মানন্নোয়নে সরকার ২০০মিলিয়ন ডলারের আরোও একটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে। এটিই বাস্তবায়নের কাজ শীঘ্রই শুরু হবে।

সিভাসু উপাচার্য প্রফেসর গৌতম বুদ্ধ দাশ বলেন, এ বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নে সরকার যে বরাদ্দ দিচ্ছে তা যথাযথভাবে ব্যয় করা হচ্ছে এবং এর সুফল শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা পাচ্ছে।

উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ইন্টার্ন শিক্ষার্থী মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম খান বলেন, শিক্ষার্থীদের জন্যে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্নতির জন্যে এই ধরনের প্রকল্প বেশ উপকারি ও প্রয়োজনীয়।”

About Meherjan Islam

Check Also

যবিপ্রবির স্নাতক ভর্তি পরীক্ষার আসন বিন্যাস প্রকাশ

মোসাব্বির হোসাইন, যবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক প্রথম বর্ষে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *