Friday , October 19 2018
সর্বশেষ
Home / প্রথম পাতা / ইলিশের জিনোম সিকোয়েন্স আবিষ্কার করলেন বাংলাদেশের বিজ্ঞানীরা

ইলিশের জিনোম সিকোয়েন্স আবিষ্কার করলেন বাংলাদেশের বিজ্ঞানীরা

ছালেহা খাতুন রিপ্তা: তিনটি মহাদেশে কর্মরত বাংলাদেশী গবেষকদের সমন্বিত প্রচেষ্টায় আবিষ্কৃত হলো ইলিশের জিনোম সিকোয়েন্সে। এই ধারণাটি প্রথম ব্যক্ত করেন ঢাবির প্রাক্তন শিক্ষার্থী ড. মং সানো মারমা, যিনি বর্তমানে ইউ এস ভিত্তিক একটি মলিকুলার টেকনোলজি ফার্মে কর্মরত। তিনি বিষয়টি প্রস্তাব করেন অধ্যাপক হাসিনা খানের নিকট যিনি গবেষণাটি পরিচালনা করেন। মংকে নিজের গবেষণাগারে বিনামূল্যে এই গবেষণাকার্য পরিচালনায় সহায়তা করেন তার প্রতিবেশী, ড. পিটার লানাকি। গবেষক টিমের অন্যন্যা সদস্যগণ হলেন, ঢাবির অধ্যাপক মোঃ রিয়াজুল ইসলাম, লেকচারার ফারহানা তাসনিম চৌধুরী এবং ঢাবির বায়োকেমিস্ট্রি এন্ড মলিকুলার বায়োলজি ডিপার্টমেন্টের তরুণ গবেষক অভিজিৎ দাস, অলি আহমেদ, জুলিয়া নাসরিন,তাসনিম এহসান এবং রিফাত নেহলিন।

ইলিশ বাংলাদেশের জাতীয় মাছ এবং জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে। এটি মোট মৎস্য আমিষের চাহিদার শতকরা ১২ ভাগ পূরণ করে। তবে নদীর অগভীরতা এবং পানি দূষণের কারণে ইলিশমাছ উৎপাদন এখন ঝুঁকির সম্মুখীন। উল্লেখ্য যে, জাটকা ও ডিম ছাড়ার আগে ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ করার ফলে ইলিশের উৎপাদন বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। মৎস্য অধিদপ্তরের হিসাবমতে, ২০১৬-১৭ বছরে ইংলিশের উৎপাদন ৪.৯৬লাখ টন যা ২০০২-৩ বছরে ছিলো মাত্র ২লাখ টন।

প্রকল্পের কাজ শুরু হয় গতবছর ১০ সেপ্টেম্বর এবং ২২ সেপ্টেম্বর পদ্মা নদী বঙ্গোপসাগররের বিভিন্ন স্থান থেকে নমুনা সংগৃহীত হয়। একাজে সহায়তা করেন ঢাবির প্রাণিবিদ্যার অধ্যাপক, প্রফেসর এম নাইমুল নাসের। এবছর ১১ জানুয়ারি সংগৃহীত DNA এবং RNA নমুনা যুক্ত্ররাষ্ট্রের গবেষণাগারে। গবেষকগণ উদ্ভাবন করেন যে, ইলিশের জীবন ইতিহাস নিহিত রয়েছে ৩০,০০০ জিনের মধ্যে।

কেনো পদ্মার ইলিশ, সমুদ্রের ইলিশ অপেক্ষা সুস্বাদু? কেনো তা সাগরের লবণাক্ত পানি থেকে ডিম ছাড়ার জন্য নদীর সাধু পানিতে আসে এবং আবার ফিরে যায়? কিভাবে তারা উভয় পরিবেশে টিকে থাকে? ইলিশের জীবনচক্র সম্পর্কে ইত্যাদি রহস্যের সমাধান মিলবে এবার। এছাড়া কৃত্রিমভাবে পুকুরে ইলিশের চাষ করে উৎপাদন বাড়ানো সম্ভব কিনা তারও জবাব মিলবে।

জিনোম সিকোয়েন্সে থেকে জানা যাবে, ইলিশ তাদের শরীরে কি ধরনের প্রোটিন তৈরি করে যা এদেরকে লবণাক্ত ও মিঠা পানিতে অভিযোজিত হতে সাহায্য করে।

 

তথ্যসূত্র :  The Daily Star

About Nur E Kutubul Alam

Project Developer | Reporter | Future Farmer | Businessman

Check Also

ওজন কমায় ধনে পাতার রস

এগ্রিভিউ হেলথ ডেস্ক: খাবারের স্বাদ বাড়ানোর অনেক নামের একটি ধনে পাতা। রান্নার স্বাদ বাড়াতে ধনে পাতার …

One comment

  1. Dr. Md. Khalilur Rahman

    এক বছর আগে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাৎস বিজ্ঞান অনুষদের শিক্ষক প্রফেসর ড. মো. শামসুল আলম ইলিশের জিনোম সিকোয়েন্স আবিষ্কার করেছেন।
    এটা উনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নওয়াব আলী কনফারেন্স হলে অনুষ্ঠিত ওয়ার্কাসপে উপস্থাপন করেছিলেন।
    সুতরাং এ নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি করবেন না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *