Monday , December 17 2018
সর্বশেষ
Home / পাঁচমিশালি / রোজায় দুগ্ধ জাত খাবার আপনার  পরিপাক বন্ধু  হবে

রোজায় দুগ্ধ জাত খাবার আপনার  পরিপাক বন্ধু  হবে

ডাঃ মো: মোস্তাফিজুর রহমান:  মহান আল্লাহর উত্তম সৃষ্টি মানুষ। এর এই মানুষকে আল্লাহ অতি ভালবাসেন। মুসলমানদের আল্লাহ জান্নাতে দেয়ার জন্য এবং পাপরাশি থেকে মুক্ত রাখার জন্য কিছু সূবর্ণ সুযোগ দিয়েছেন। রমজানুল মোবারক অন্যতম একটি সুযোগ। রমজান মাস মহিমাহ্নিত মাস। এই মাসে কোরআন নাজিল হয়েছে যা গোটা পৃথিবীর মানুষের জন্য হেয়াদাতের মব্জিলে মাকসুদ। এই মাস সিয়াম সাধনার মাস, নিজের পাপরাশি ক্ষমা পাওয়ার পাশাপাশি জান্নাত অর্জন করার মাস।
এই মাসে সিয়াম সাধনা করতে হয়, আল্লাহর সন্তষ্টির জন্য সুর্যাদয় হতে সুর্যাস্ত পর্যন্ত অনাহারে থাকতে হয়। এই মাসে রোজা রাখতে মানুষের দৈহিক ও আত্বিক উভয়েরই উন্নতি হয়। এই মাসে খাও্যার ব্যাপারে সবাই বেশি সচেতন। আর অন্য সব খাবারের মধ্যে দুদ্ধ ও দুদ্ধ জাত খাবার আপনাকে অনেকভাবে সহায়তা করতে পারবে।

রমাজান মাসে আল্লাহর অন্যতম সৃষ্টি গরু হতে প্রাপ্ত দুধ আপনারে তৃষ্ণায় পরিতুষ্ট করার পাশাপাশি বন্ধুর মত দেহের ক্ষয় পুরুনে সাহায্য করে।

রমজানে দুধ পান করার গুরুত্ব ও নিয়মঃ
রমাজান মাসের যে বিষয়টা আমাদের সবার দৃষ্টি আকর্শন করে তা হল রোজা রাখা। এই সময় দীর্ঘক্ষন পানাহার হতে বিরত থাকার ফলে আমাদের বেশি বেশি তৃষ্ণা,লাগে। আর দুধ পান করার ফলে এই তৃষ্ণা কমিয়ে আনে অনেকাংশে।আপনি যদি সেহরিতে খাবার খাওয়ার পরে দুধ বা দুধ ভাত খান, তাহলে আপনার তৃষ্ণা খুব কমই অনুভূত হবে। আবার যদি ইফতারে দুধ খান তাহলে রাতের ঘুম ভাল হবে এবং সারাদিন রোজা রাখার ক্লান্তি অনেকটাই কমে যাবে। পাশাপাশি দুধের সেমাই, খিরসা বা দই খেলে আপনার হজমের সকল সমস্যার প্রাথমিক সমাধান হতে পারে।
ইফতারে রাখতে পারেন দইঃ 

দুধের উপকারী অনুজীবের সমন্বয়ে সুস্বাদু পুষ্টিকর খাবার হল দই। আপনার সারাদিনের না খাওয়া শরীরে ইফতারের পর অন্যান্য খাবারের সাথে দই খেলে হজম ভাল হবে। পাশাপাশি সকল প্রকার গ্যাষ্টিক ও পেটের পীড়ায় আক্রান্ত ব্যাক্তিদের ক্ষেত্রে প্রাথমিক চিকিৎসা হবে। দইয়ের উপকারী পরিপাকি ব্যাকটেরিয়া আপনার অন্ত্রের স্বাভাবিক অবস্থা বজায় রাখাতে সহায়তা করবে। খাবারে রুচি ফিরে আনবে এবং পর্যাপ্ত খাদ্য গ্রহনে সহায়তা করবে। শুধু তাই নয় নিয়মিত দই খেলে আপনার শরীরের সুস্থ্যতার পাশাপাশি আয়ু বৃদ্ধিতে সহায়ক বলের জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

তবে বিশেষভাবে মনে রাখতে হবে, রমজানে দুধ খাওয়ার আগে যথেষ্টভাবে ফুটিয়ে এবং পরে ঠান্ডা করে খাওয়া উত্তম। কারণ অন্যদিনের মত বেশি গরম দুধ খেলে সমস্যা হতে পারে।

About Mostafizur Rahman

Check Also

সরিষা ক্ষেতে কৃত্রিম পদ্ধতিতে মধু চাষ করছেন নওগাঁর শিক্ষিত যুবকরা

দিগন্ত জুড়ে ফসলের মাঠ। যতদুর চোখ যায় শুধু হলুদ আর হলুদ রঙে মাখামাখি। এ যেন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *