Monday , December 17 2018
সর্বশেষ
Home / কৃষি বিভাগ / যেসকল কারণে একুয়াপনিক্স হাইড্রোপনিক্স থেকে এগিয়ে থাকবে
Image Source: Upstart University - Upstart Farmers

যেসকল কারণে একুয়াপনিক্স হাইড্রোপনিক্স থেকে এগিয়ে থাকবে

নূর-ই-কুতুবুল আলম, খুবি প্রতিনিধিঃ বর্তমানে বিশ্বজুড়ে মাটি ছাড়া সবজি চাষের জোয়ার চলছে। হাইড্রোপনিক্স এবং একুয়াপনিক্সের ধারণার পর থেকে সবাই এখন এই প্রযুক্তিগুলোর দিকে ঝুঁকছে। ছোট দেশগুলোতে ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার দরুন ক্রমে কমে আসছে আবাদি জমির পরিমাণ, ব্যাহত হচ্ছে কৃষিকাজ। তাই কৃষিবিজ্ঞানীদের একান্ত প্রচেষ্টায় হাইড্রোপনিক্স এবং একুয়াপনিক্স প্রযুক্তির আবির্ভাব ঘটে।

মাটি ছাড়া সবজি চাষের লক্ষ্যে এক হলেও হাইড্রোপনিক্স এবং একুয়াপনিক্সে ব্যবহৃত উপাদানসমূহ ভিন্ন। একুয়াপনিক্স কেন হাইড্রোপনিক্স থেকে এগিয়ে থাকবে তা নিচে সংক্ষেপে তুলে ধরা হলোঃ

১। রাসায়নিক উপাদানের প্রয়োগঃ

হাইড্রোপনিক্স প্রযুক্তিতে উদ্ভিদের জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টি সরবরাহে আলাদাভাবে রাসায়নিক সরবরাহ করতে হয়, যা তুলনামূলক ব্যয়বহুল। এখানে উপকারী ব্যাকটেরিয়া অনুপস্থিত। বিপরীতে, একুয়াপনিক্সে রাসায়নিক ছাড়াই উদ্ভিদে পুষ্টি সরবরাহ করা সম্ভব। এই পদ্ধতিতে মাছের বিষ্ঠা এবং ব্যাকটেরিয়া হতে প্রয়োজনীয় পুষ্টি উদ্ভিদের যাবতীয় চাহিদা পূরণ করে। এখানে খরচ বলতে মাছকে নিয়মিত খাবার দিতে হয়। তাই অর্গানিক ফার্মিং এর ওপর বিবেচনা করলে একুয়াপনিক্স এগিয়ে থাকবে। এছাড়া ইটের খোয়া অথবা পাথরে খনিজ উপাদান থাকে যা উদ্ভিদে খনিজ উপাদান সরবরাহের পাশাপাশি উদ্ভিদকে শক্ত ভিত্তি প্রদান করে।

২। পুষ্টি সরবরাহের রিসাইক্লিংঃ

হাইড্রোপনিক্সে নির্দিষ্ট মেয়াদ পর সরবরাহকৃত রাসায়নিক পুষ্টি উপাদান অকার্যকর হয়ে পড়ে। তখন পুনরায় রাসায়নিক সরবরাহের প্রয়োজন দেখা দেয়। একুয়াপনিক্স অর্গানিক পদ্ধতিতে চক্রাকারে পুষ্টি সরবরাহ (মাছের বিষ্ঠা এবং ব্যাকটেরিয়া) করতে থাকে, তাই আলাদা করে উদ্ভিদের জন্য পুষ্টি সরবরাহ করার প্রয়োজন পড়ে না।

৩। উৎপাদন সক্ষমতাঃ

উৎপাদনের দিক থেকে একুয়াপনিক্স এবারও হাইড্রোপনিক্স থেকে এগিয়ে থাকছে। বিভিন্ন গবেষণায় জানা যায়, ৬ মাস মেয়াদে একুয়াপনিক্সের বায়োফিল্টার পুরোপরি তৈরি হয়ে গেলে হাইড্রোপনিক্সের থেকেও বেশ দ্রুতই উদ্ভিদ বেড়ে উঠে।


Hydroponics – Image Source: Food & Nutrition Magazine

৪। রক্ষণাবেক্ষণঃ

হাইড্রোপনিক্সের মতো একুয়াপনিক্সে নিবিড় পর্যবেক্ষণের কোনো বালাই নেই। কেননা, হাইড্রোপনিক্সে দিনে একবার ইলেকট্রিক্যাল কন্ডাকটিভিটি পর্যবেক্ষণ করতে হয়। একুয়াপনিক্সে শুধুমাত্র সপ্তাহে একদিন pH এবং অ্যামোনিয়া লেভেল এবং মাসে একবার নাইট্রেট লেভেল পর্যবেক্ষণ করতে হয়।

৫। রোগবালাইঃ

রোগবালাইয়ের জন্য প্রতিটি কৃষক/গার্ডেনারকে কমবেশি চিন্তিত থাকতে হয়। কারণ ফসলসবজিতে বিভিন্ন ছত্রাক আক্রমণ করে যা ফসলের উৎপাদনকে ব্যাহত করে। হাইড্রোপনিক্সের ক্ষেত্রে দেখা যায়, উদ্ভিদে Pythium গণের ছত্রাক সহজেই আক্রমণ করে, পরিণামে হয় ব্যাপক ক্ষতি। কারণ হিসেবে জানা যায়, রাসায়নিক পুষ্টি উপাদান ৭০ ডিগ্রি ফারেনহাইট তাপমাত্রার ওপরে চলে গেলে Pythium গণের ছত্রাকের বৃদ্ধির জন্য সহায়ক পরিবেশের সৃষ্টি হয়। গবেষকরা তাই ৭০ ডিগ্রি ফারেনহাইটের নিচে রাসায়নিক পুষ্টি উপাদানের তাপমাত্রা রাখার পক্ষে সুপারিশ করেছেন। একুয়াপনিক্স পদ্ধতিতে Pythium গণের ছত্রাকের আক্রমণের কোনো সম্ভাবনা থাকে না। এই পদ্ধতিতে শুধুমাত্র মাছের ট্যাংকে তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণের প্রয়োজন পড়ে, বিশেষ করে তেলাপিয়া মাছ ৮২৮৬ ডিগ্রি ফারেনহাইট তাপমাত্রার পানিতে ভালোভাবে বেড়ে উঠতে পারে। এছাড়া উদ্ভিদের জন্য উপকারী ব্যাকটেরিয়া এমন সহনীয় তাপমাত্রায় সহজেই বিস্তার করতে পারে।

Aquaponics – Image Source: Homeaquaponicssystem.com

৬। পরিবেশবান্ধবঃ

হাইড্রোপনিক্সে সরবরাহকৃত রাসায়নিক পুষ্টি উপাদান অকার্যকর হয়ে গেলে তা সরাসরি পরিবেশে যত্রতত্র ফেলে দেয়া যায় না, নির্দিষ্ট মেয়াদ শেষে এটি বিষাক্ত হয়ে যায় যা পরিবেশের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। একুয়াপনিক্সে নাইট্রোজেন এবং পানির ভারসাম্য প্রাকৃতিকভাবেই নিয়ন্ত্রিত হয়, তাই পানি পরিবর্তনের তেমন প্রয়োজন পড়ে না।

বর্তমানে বিশ্বে বিস্তর গবেষণার কারণে এখন অর্গানিক ফার্মিং রাসায়নিকবান্ধব চাষ পদ্ধতিকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে। মানুষ হয়ে উঠছে পরিবেশ ও স্বাস্থ্য সচেতন। অর্গানিক ফার্মিং এর অধ্যায়ে একুয়াপনিক্স এভাবেই যোগ করে চলেছে নতুন মাত্রা, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

About Nur E Kutubul Alam

Agri Journalist | Future Farmer | Student

Check Also

সরিষা ক্ষেতে কৃত্রিম পদ্ধতিতে মধু চাষ করছেন নওগাঁর শিক্ষিত যুবকরা

দিগন্ত জুড়ে ফসলের মাঠ। যতদুর চোখ যায় শুধু হলুদ আর হলুদ রঙে মাখামাখি। এ যেন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *