Monday , June 25 2018
Home / কৃষি বিভাগ / ১ কেজি জাফরানের মূল্য ৪ লাখ টাকা!

১ কেজি জাফরানের মূল্য ৪ লাখ টাকা!

 

মোঃ আল আমীন (আকাশ), নোবিপ্রবি প্রতিনিধি

জাফরান (ইংরেজিsaffron crocus), (বৈজ্ঞানিক নামCrocus sativus) হচ্ছে Crocus গণের একটি সপুষ্পক উদ্ভিদের প্রজাতি। এটি ওজনের মধ্যে বিশ্বের সর্বাপেক্ষা মূল্যবান মসলার একটি। এদের বেশির ভাগ ভারতে কাশ্মীরে জন্মায়। এটি গ্রিসে প্রথম চাষ করা হয়েছিল। এদের অন্যান্য স্থানীয় নামের মধ্যে আছে saffron Za’afaran, Zaafaran Kesar, Zafran.

এক অজানা কারণে জাফরান ফল তৈরি করতে পারে না। যার ফলে এটি বংশ বিস্তারের জন্য মানুষের সাহয্য প‌্রয়োজন হয়। ক্রোমগুলি মাত্র এক বছর পর্যন্ত বেচে থাকে এবং এর মধ্যেই এই ক্রোমগুলিকে মাটিতে রোপন করতে হয়। জফরানের কথা সবাই জানলেও এর গাছ অনে‌কেই হয়তো দে‌খেননি। নি‌চের ছ‌বিটি জাফরান গাছ, ফুল, ও জাফরা‌ন। এর আরো একটি নাম কুমকুম। অত্যন্ত মূল্যবান হওয়ায় জাফরানকে বাণিজ্যিক অঙ্গনে বলা হয় লাল সোনা (রেড গোল্ড)।

জাফরান ফুল দেখতে যেমন আকর্ষনীয় তেমনি আকর্ষনীয় এর সুগন্ধ। এই উদ্ভিদের অন্যতম প্রধান বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এর কোন বীজ হয় না। বিস্ময়ের ব্যাপার যে, এর ফুল হয় অথচ বীজ হয় না । এটি বহুমূল্য হওয়ার আরো একটি কারণ আছে। এই উদ্ভিদ থেকে পৃথিবীর সবচেয়ে মূল্যবান মসলা উৎপাদন করা হয়। এই মসলার নামও জাফরান। এটা কত মূল্যবান তা বোঝা যায় এর দাম শুনলেই। ১ কেজি জাফরানের গড় দাম বাংলাদেশী মূদ্রায় প্রায় চার লাখ টাকা । ৪৫০ গ্রাম জাফরান তৈরির জন্য প্রায় ৭৫ হাজার ফুল প্রয়োজন।

জাফরানের ব্যাবহারঃ                                                                                                                                                                        জাফরান ফুলে লাল বর্ণের তিনটি গর্ভদণ্ড থাকে। এগুলোকে ইংরেজিতে বলে স্টিগমা। এই গর্ভদণ্ড সংগ্রহ করে শুকিয়ে জাফরান প্রস্তুত করা হয়। সত্যিই বড় অদ্ভুত আমাদের প্রকৃতি। আমাদের দেশে জাফরান মূলত: ব্যবহার হয় জরদা নামের মিষ্টান্ন ও পায়েস তৈরিতে। বিরিয়ানির সুন্দর রঙ আনার জন্যও জাফরান ব্যবহার করা হয়।

 

এ ছাড়াও জাফরান দিয়ে প্রস্তুত করা হয় জাফরান কালি। এই জাফরান কালি ব্যবহার করা হয় আরবী লেখার ক্ষেত্রে। মৌলভী ও ইমামগণ জাফরান কালি দিয়ে পাত্রে আরবীতে দোয়া লিখে অসুস্থ ব্যক্তির জন্য দিয়ে থাকেন। এই কালি ধোয়া পানি রোগী পান করে থাকেন।

জাফরানের উপকারীতাঃ                                                                                                                                                                    জাফরান যেমন অর্থকরী একটি মসলা তেমনি এটি স্বাস্থ্যের জন্যও অনেক উপকারী। এটি গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা ও অন্য অনেক শারীরিক সমস্যা নির্মূলে ঔষধি হিসেবে কাজ করে থাকে।

একসময় দেহসৌষ্ঠব বাড়ানোর জন্য গায়ে মাখা হতো জাফরান। ত্বকের লাবন্য বাড়াতে জাফরানের জুড়ি নেই। এটি ত্বককে উজ্জ্বল করে এবং অবসাদের চিহ্ন দূর করে ত্বককে সতেজ ও সজীব করে তোলে। এর ভেষজ গুণ এতই সমৃদ্ধ যে, এটি মানবদেহে অন্তত ১৫টি সমস্যা দূর করতে সক্ষম। জাফরানে উচ্চ রক্তচাপ ও হৃদপিণ্ডের সমস্যা দূর হয়। হজমজনিত সমস্যা নিরাময়ে জাফরান প্রয়োগের নজির আছে। পরিমাণমত জাফরান নিয়মিত খেলে ফুসফুসের বিভিন্ন রোগ দূর হয়ে যায়। অনিদ্রা দূর করে জাফরান। যে কোন ধরণের ব্যথা নিরাময়ে জাফরান অত্যন্ত কার্যকরী। স্মৃতিশক্তি ও চিন্তাশক্তি বৃদ্ধিতেও এটি বেশ সহায়ক। প্রসাধন সামগ্রীতে জাফরানের বহুল ব্যবহার রয়েছে।

 

 

 

 

About Al Amin

Check Also

ড.নিরঞ্জন কুমার সানাকে নতুন উপাচার্য নিয়োগ দেওয়ায় বশেফমুবিপ্রবিতে আনন্দ মিছিল

বশেফমুবিপ্রবি প্রতিনিধি : বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন ও প্রথম উপাচার্য নিয়োগ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *