Monday , June 25 2018
Home / প্রথম পাতা / দৈনিক ২৫০ মিলি দুধ পান, সাত সমস্যার সমাধান!

দৈনিক ২৫০ মিলি দুধ পান, সাত সমস্যার সমাধান!

আজ ১লা জুন, বিশ্ব দুগ্ধ দিবস। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত আমাদের দেশেও দিবসটি পালিত হচ্ছে। একজন পূর্ণ বয়স্ক মানুষের জন্য দৈনিক দুধের চাহিদা হল ২৫০ মিলি।

চলুন জেনে নিই দুধের ৭ টি অবিশ্বাস্য পুষ্টিগুণ –

১। হাড় ও দাঁত সুদৃঢ় করণ

গরুর দুধের সবথেকে পরিচিত ও প্রখ্যাত উপকারি দিক হল হাড় ও দাতের মজবুত গঠনে সহায়তাকরন। দুধে প্রোটিনের পাশাপাশি রয়েছে উচ্চ ক্যালসিয়াম ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় খনিজ পদার্থ যা হাড়ের ঘনত্বের জন্য অত্যাবশ্যকীয় সাথে সাথে দাঁতের জন্যও দরকারি। আপনার বয়স বাড়ার সাথে সাথে আপনার হাড়ের ঘনত্বও বাড়তে থাকে আর পর্যাপ্ত পরিমাণ দুধ পানে এই অতিরিক্ত ক্যালসিয়ামের অভাব পূরণ করে হাড় ও দাঁতকে সুদৃঢ় রাখে। সূত্রঃhttps://link.springer.com/article/10.1007%2Fs001980070020?LI=true

২। হৃদপিণ্ডের সুস্থতা

গরু তৃণভোজী হওয়ায় এদের দুধে রয়েছে ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড। এই ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড কে বলা হয় দেহের “ভাল” মানের কোলেস্টেরল যা হৃদপিণ্ডের সুস্থতা নিশ্চিতকরণ ও অন্যান্য হৃদপিণ্ডের রোগ যেমন হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধে সহায়তা করে।
সুত্রঃhttps://lipidworld.biomedcentral.com/articles/10.1186/1476-511X-6-25

৩। ডায়াবেটিস প্রতিরোধ

এক গবেষণায়, প্রতিনিয়ত দুধ পান ও রক্তের সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রনের মাঝে এক যোগসূত্র পাওয়া গেছে। দুধে আছে উচ্চ মাত্রার ভিটামিন-বি এবং পর্যাপ্ত পরিমাণ অন্যান্য খনিজ পদার্থ যা দেহের পরিপাক প্রক্রিয়াকে সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে সম্পন্ন হতে সাহায্য করে। যার ফলে দেহে সুগার ও ইনসুলিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রিত হয়। আর রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রন ডায়াবেটিস প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রনের একটা বড় উপায়।
সুত্রঃhttp://www.tandfonline.com/doi/abs/10.1080/07315724.2008.10719750

৪। মাত্রারিক্ত ওজন কমানো

গবেষকরা দেখতে পেয়েছেন যে দুধ দেহের মাত্রারিক্ত ওজন কমাতে সাহায্য করে বিভিন্ন কারনে। যেমন-
▷ দুধ আপনার ক্ষুধা এর কম মাত্রার ক্যালোরি দিয়েই পরিতৃপ্ত করতে সাহায্য করে কারণ এতে রয়েছে উচ্চ মাত্রার প্রোটিন।

▷ দুধের বিপাকীয় উন্নতিসাধন ক্ষমতা ও উচ্চ মাত্রার প্রোটিন আপনাকে প্রচুর শক্তি সরবরাহে সাহায্য করে এবং অলস জীবন যাপন প্রতিরোধে ভূমিকা রাখে।
আর এই উচ্চ বিপাকীয় ক্ষমতা ও কায়িক শ্রমই ওজন নিয়ন্ত্রনে সাহায্য করে।
সুত্রঃhttps://jamanetwork.com/journals/jamapediatrics/article-abstract/486041

৫। প্রদাহজনিত সমস্যায়

দুধকে অনেক সময় gout, arthritis থেকে শুরু করে respiratory distress, skin burn এর দাওয়াই হিসেবে সুপারিশ করা হয়। দুধের সম্পূর্ণ প্রাণীজ আমিষের সংমিশ্রণ, ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড এবং antioxidant compounds এর উপস্থিতি দুধকে প্রদাহের বিরুদ্ধে এক বিস্ময়কর খাবারে পরিণত করেছে।

মশলাদার খাবারের পর মানুষ কেন দুধ খায় জানেন? কারণ ইহা হজমের ক্ষমতা বাড়ায় ও পরিশোষণ এ সাহায্য করে।
সুত্রঃhttp://www.aensiweb.net/AENSIWEB/aejsa/aejsa/2009/534-541.pdf

৬। দেহের বৃদ্ধি ও বিকাশ

আমরা জানি প্রোটিন বা আমিষ আমাদের দেহের শরীরবৃত্তীয় গঠন ও কাজের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান কিন্তু এর জন্য বিভিন্ন ধরনের প্রোটিনের প্রয়োজন হয় যা সব সময় একই খাবারে পাওয়া কঠিন। দুধ হল একমাত্র খাবার যাতে আছে সকল ধরনের প্রোটিন যা আমাদের শরীর গঠন ও শক্তি আনয়নে সরাসরি কাজ করে। এজন্য, বিশেষ করে বেড়ে উঠা ছেলেমেয়েদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য প্রতিদিন দুধ পান অত্যন্ত জরুরী।
সুত্রঃhttp://www.sciencedirect.com/science/article/pii/S0022030281827440

৭। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি

দুধে যে শুধু ক্যালসিয়াম, প্রোটিন, ভিটামিন ইত্যাদি আছে তা নয়, এতে আরও রয়েছে antioxidant compounds যেমন vitamin E, selenium এবং zinc যারা দেহে দীর্ঘ স্থায়ী রোগ ও মিউটেশন ঘটানো free radicals খুঁজে বের করে।
নিয়মিত দুধ পান ত্বকের বাহ্যিক সৌন্দর্য ও তারুন্য বজায় রাখতে সাহায্য করে।
সুত্রঃhttp://www.sciencedirect.com/science/article/pii/S0958694609000314

 

ডা. মোঃ জাহাঙ্গীর আলম

ডিভিএম, এমএস ইন প্যাথলজি (বশেমুরকৃবি)

About Abu Naser

Check Also

ড.নিরঞ্জন কুমার সানাকে নতুন উপাচার্য নিয়োগ দেওয়ায় বশেফমুবিপ্রবিতে আনন্দ মিছিল

বশেফমুবিপ্রবি প্রতিনিধি : বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন ও প্রথম উপাচার্য নিয়োগ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *