Tuesday , January 22 2019
সর্বশেষ
Home / Uncategorized / ৪৬তম ব্যাচের মৎস্য শিক্ষার্থীদের ডাইনিং শিশুদের মাঝে জামা বিতরণ

৪৬তম ব্যাচের মৎস্য শিক্ষার্থীদের ডাইনিং শিশুদের মাঝে জামা বিতরণ

মো. শাহীন সরদার, বাকৃবি প্রতিনিধি
মানুষ মানুষের জন্য। আমাদের চারপাশে রয়েছে অসংখ্য অবহেলিত মানুষ। একটু ভালো খাওয়া, পড়ালেখা করা, ঈদে নতুন জামা যেন ওদের কাছে বিলাসিতা। আমাদের সমাজের যারা বিত্তমান ও স্বচ্ছল ব্যক্তি আছে তাদের একটু নজরই বদলে দিতে পারে অবহেলিতদের জীবনধারা। সেই চিন্তা থেকেই এবং অন্যান্যদের মাঝে অনুপ্রেরণা জাগাতে ক্ষুদ্র প্রয়াস ছিলো বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের ৪৬তম ব্যাচের ২০১৪-০১৫ সেশনের শিক্ষার্থীদের।

dav

নিজেদের পড়ালেখার সামান্য টাকা থেকেই সবাই কিছু করে টাকা দিয়ে হলের ডাইনিংয়ে কর্মরত শিশুদের ঈদের আনন্দ বাড়িয়ে দিতে নতুন জামা বিতরণের উদ্যোগ নেয়। বাকৃবিতে শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে মোট ১৩টি হল। সেসব হলের ডাইনিংয়ে কাজ করে ৭ থেকে ১৫ বছরের শিশুরা। কাজ করে সামান্য যে অর্থ পায় তা পরিবারের আর্থিক স্বচ্ছলতায় ব্যয় করে। নিজেদের স্বাদ-আহ্লাদ বা পড়ালেখার সুযোগ হয়ে ওঠে না। সেখানে ঈদে একটি নতুন জামাতো বিলাসীতা। তাদের মুখে হাসি ফুটাতে সাধ্যের মধ্যে ভালোবাসার ছোয়াঁ পৌঁছে দিতে ১৩টি হলের প্রায় ৩০জন শিশুর মাঝে নতুন জামা তুলে দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার দুপুর দুইটায় মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদীয় গ্যালারীতে ওই জামা বিতরণ করা হয়। এসময় মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. গিয়াসউদ্দিন আহমদ, মাছ চাষ বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ মাহফুজুল হক, অধ্যাপক মোহাম্মদ সাজ্জাাদ হোসেন, মাছ ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. মাহফুজুল হক, লেকচারার মো. আল ইমরানসহ ৪৬তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

শাহজালাল হলের ডাইনিংয়ে কর্মরত সোহাগ অনুভূতি ব্যক্ত করে বলেন, নতুন জামা পেয়ে অনেক ভালো লাগছে। এবার ঈদে আর পুরাতন জামা পরতে হবে না। নতুন জামা পরে বন্ধুদের সাথে ঘুরতে পারবো।

এ বিষয়ে ৪৬তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা বলেন, ভালো কিছু করার চিন্তা থেকেই হঠাত আমরা ডাইনিংওে কর্মরত অবহেলিত শিশুদের জামা দেওয়ার কথা ভাবি। সমাজের অবহেলিত এই মানুষগুলোর পাশে আমাদেরই দাঁড়াতে হবে। তবেই সমাজ ও দেশ বদলে যাবে।

এ বিষয়ে অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. গিয়াসউদ্দিন আহমদ বলেন, এটা এক মহতী উদ্যোগ। আমার শিক্ষার্থীরা এমনটি ভেবেছে তাতে আমরা গর্ববোধ করছি। ভবিষ্যতে তোমরা সমাজের অবহেলিতদের নিয়ে আরো ভালো ভালো উদ্যেগ গ্রহণ করবে বলে বিশ্বাস। তোমদের দেখে অন্যান্যদের অণুপ্রাণিত হওয়া ইচিত। এভাবে প্রত্যেকে আমরা সমাজ নিয়ে ভাবলে গড়ে ওঠবে সোনার বাংলা।

মো. শাহীন সরদার
বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ।
মোবাইল ০১৭৩৭৭২১৬০৩।

About Shahin Sardar

Check Also

যবিপ্রবিতে শিক্ষক সমিতির মানববন্ধনঃ হামলায় জড়িতদের শাস্তির দাবি

যবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ শিক্ষককে হুমকি, শিক্ষক সমিতির মানববন্ধনে হামলা ও উপাচার্য সহ দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে মিত্থা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *