Thursday , November 15 2018
সর্বশেষ
Home / প্রথম পাতা / আমার ক্যাম্পাস / বশেমু্রকৃবিতে সংঘর্ষ, ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সহ আটক প্রায় ৫০

বশেমু্রকৃবিতে সংঘর্ষ, ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সহ আটক প্রায় ৫০

মোস্তাফিজুর রহমানঃ গাজীপুরে অবস্থিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান  কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরকৃবিতে)  সাধারণ শিক্ষার্থীদের ১৩ দফা দাবীতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সাথে পুলিশে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। পুলিশের সাথে ধাওয়া পালটা ধাওয়ারও অভিযোগ উঠেছে।

শান্তিপুর্ণ কর্মসূচি শেষে হলে ফিরার পর হল থেকে পুলিশ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ফজলে রাব্বী বাধন এবং সাধারণ সম্পাদক মীর ওবায়দুর রহমান শাওন কে গ্রেপ্তার করে। ওই খবর সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে পুলিশের সাথে তাদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার এক পর্যায়ে উপাচার্যের গাড়ি ও কার্যলয় ভাংচুর হয়। তারপর পুলিশ বিভিন্ন হলে অভিযান চালিয়ে ছাত্রলীগের সহ সভাপতি তারেক সহ আনুমানিক ৫০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ভর্তি ফি ও পরীক্ষার ফি কামানো, সেমিষ্টার পদ্ধতি চালু করা সহ ১৩ দফা দাবীতে আন্দোলন করে আসছিল সাধারন শিক্ষার্থীরা। তাদের ধারাবাহিক আন্দোলনের অংশ হিসাবে আজ মঙ্গলবার ক্লাশ পরীক্ষা বর্জন কর্মসুচীর ডাক দেয় তারা। বেশির ভাগ ক্লাশ পরীক্ষা বর্জন করলেও কেউ কেউ ক্লাশে উপস্থিত ছিল বলে জানা গেছে।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের এক পর্যায়ে শিক্ষকদের সাথে কথা কাটাকাটির ঘটনা ঘটে। ঐ সময় এক শিক্ষক সহ কয়েকজন কর্মচারী ছাত্রদের গায়ে হাত উঠিয়েছে বলে অভিযোগ শিক্ষার্থীদের। শিক্ষকদের এমন অনৈ্তিক কার্যক্রমের প্রতিবাদে আন্দোলনরত ছাত্র জনতা ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন। এবং দাবী না আদায় হওয়া পর্যন্ত আমরণ অনশনের ডাক দেয়। সন্ধ্যা হলে দিনের মত কর্মসূচি শেষ করার ঘোষণা দেয়।

অন্যদিকে ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয় এবং পুলিশ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ফজলে রাব্বী বাধন, সাধারণ সম্পাদক মীর ওবায়দুর রহমান শাওনকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে যায়।

শান্তিপুর্ণ কর্মসুচী আজকের মত শেষ ঘোষণা করে ছাত্ররা নিজ নিজ হলে চলে যায়। পরে পুলিশ ছাত্রদের ধাওয়া দেয় এবং ধাওয়া পালটা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এই সময় বিক্ষুপ্ত ছাত্ররা উপাচার্যের গাড়ি এবং কার্যালয়ে ভাংচুর চালায়। পুলিশ হলে ঢুকে রুমে রুমে তল্লাসী চালিয়ে য়ানুমানিক ৪০ জন ছাত্রকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে যায়। এখন ক্যাম্পাসে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। তবে বিশ্ববিদ্যলয় সুত্রে জানায় শুধু মাত্রা ভাংচুর কারী ছাত্রদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। যারা আন্দোলন করেনি তাদের কোন সমস্যা হবেনা।

এই বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টোরের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।  শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত কাউকেই এখনো ছাড়েনি পুলিশ।

উল্লেখ্য- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান  কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু নিয়ম যেমন কেউ যদি  অনার্সের কোন সেমিষ্টারে  ২.৫ এর কম সিজিপিএ পেলে তাহলে তার ভর্তি বাতিল হয়, ৩ পয়েন্টের কম হলে সে মাস্টার্সে অধ্যায়ণের সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয় এবং বছরে তিনটা সেমিষ্টার চলে এই সবের বিরোধিতা করে আসিছিল সাধারন শিক্ষার্থীরা।  বাংলাদেশের প্রায় সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে বছরে দুইটা সেমিষ্টার সিস্টেমে ক্লাশ পরিচালিত হয়ে আসছে।

About Mostafizur Rahman

Check Also

অাগামীকাল গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে শুরু হতে যাচ্ছে ৪র্থ অান্তর্জাতিক “পিপলস হেলথ এসেম্বলি-২০১৮”

অনিক অাহমেদ, গণ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি: “এখনই সবার জন্য স্বাস্থ্য” প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে অাগামীকাল থেকে শুরু …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *