Sunday , August 19 2018
Home / প্রথম পাতা / বন্যপ্রাণি ভেট ডা. নাজমুল হুদা ও একটি ভূবন চিলের গল্প

বন্যপ্রাণি ভেট ডা. নাজমুল হুদা ও একটি ভূবন চিলের গল্প

ভূবন চিল এক প্রকার শিকারী পাখি ।  এরা বাদামি চিল, গোদা চিল, ডোম চিল নামেও পরিচিত। (বৈজ্ঞানিক নাম: Milvus migrans) ইংরেজীতে বলে Black Kite । এরা রেপটর গ্রুপের পাখি । বাংলা নামকরণে তার বিচরণ ক্ষেত্র বিবেচনায় এনে হয়ত করা হয়েছে । খোলা জায়গায় বিচরণ করতে অভ্যস্থ । বাসা জঙ্গলে তৈরী করলেও সাধারণত জঙ্গলের এক কিনারায় যেখানে নদী কীংবা পানির উৎস কাছাকাছি আছে এমন জায়গাটি পছন্দ করে নেয় । ইংরেজীতে ব্ল্যাক কাইট বলা হলেও তার গায়ের রং বাদামী ।

যে সকল বৈশিষ্ট্যর কাছে জন্য পাখি শিকার ধরতে পারে তার সবই আছে ভূবন চিলের মাঝে । যেমন কয়েক কিলোমিটার দূর থেকে শিকারকে শনাক্ত করা, প্রখর ঘ্রান শক্তি, পায়ে শক্তি শালী টেলন বড়শির মত বাকানো ঠোট । এরা ছোট ছোট পাখি চলন্ত অবস্থায় ধরে ফেলতে পারে।
পছন্দের খাবার ইদুর জাতীয় প্রাণি, সাপ, ব্যাঙ, মাছ , মরদেহ এবং ডাস্টবিনের ময়লা । ডাস্টবিন থেকে খাবার সংগ্রহের জন্য শহর এলাকাও বিচরণ করে থাকে এই শিকারী পাখি যা তার জীবনের জন্য ঝুঁকি হয়ে দাড়ায় ।
রেপটর বিশেষজ্ঞদের মতে অনিয়ন্ত্রিত ভাবে ইদুর মারার বিষ, পানি দূষণ, আবাসস্থল বিনাশ , প্রাকৃতিক দূর্যোগ (ঝড় ও শিলা বৃষ্টি) এবং বৈদ্যুতিক শককে জীবনের ঝুঁকি হিসাবে দায়ী করছেন । আইইউসিএন রেড লিস্ট অনুযায়ী এরা Least Concern এর অন্তর্ভূক্ত । ভারতীয় বিজ্ঞানীদের মতে চরে খাওয়া (scavengers) পাখিদের মধ্যে শকুন মহাবিপন্ন হওয়ার পর কাকদের কারণে চিলও অনেক সংকটে। কাকরা চিলদের বাসস্থান নষ্ট করে দেয়। আমাদের দেশের পরিপ্রেক্ষিতে সেটা হয় কিনা… ভাবার বিষয়।
একটি ভূবন চিল গতকাল আহত অবস্থায় রাজধানীর মিরপুর এলাকায় রাস্তার পাশ থেকে জনৈক ব্যক্তি উদ্ধার করেন এবং চিকিৎসার জন্য বাংলাদেশ জাতীয় চিড়িয়াখানার ভেটেরিনারি হাসপাতালে ডা. নাজমুল হুদার কাছে হস্তান্তর করেন । পাখিটির বাম ডানার হাড় ভেঙ্গে গেছে তবে চলাফেরা ও খাদ্য গ্রহণ স্বাভাবিক আছে । আজ ডানায় অস্ত্রোপাচার করা হয়েছে । ধারণা করা হচ্ছে ঝড়ের কবলে গড়ে গাছে ডালে আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে ডানার হাড় ভেঙ্গে গেছে । পাখিটি বাংলাদেশ জাতীয় চিড়িয়াখানার জু ভেটেরিনারিয়ান ডা. নাজমুল হুদার তত্ত্ব্বাবধায়নে চিকিৎসাধীন আছে । পাখিটি সুস্থ স্বাভাবিক জীবন ফিরে পেলে প্রদর্শণিতে প্রদান করা অথবা প্রকৃতিতে অবমুক্ত করা হবে  বলে জানিয়েছেন জু ভেটেরিনারিয়ান ডা. নাজমুল হুদা।

একজন ভেটেরিনারিয়ানের হাত ধরে ভূবনে রক্ষা পাক চিলটি।

সবার প্রচেষ্টায় রক্ষা পাক জীববৈচীত্র্য।

About Publisher

Check Also

রোটার‍্যাক্ট ও রোটারি ক্লাবের যৌথ উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি

শেকৃবি প্রতিনিধিঃ রোটারি ক্লাব অফ ঢাকা মিড সিটি ও রোটার‍্যাক্ট ক্লাব অব ঢাকা মিড সিটি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *