Wednesday , November 14 2018
সর্বশেষ
Home / প্রথম পাতা / খামার লাভজনক করার হাতিয়ার, ইউরিয়া মোলাসেস স্ট্র (UMS) এর ব্যবহার

খামার লাভজনক করার হাতিয়ার, ইউরিয়া মোলাসেস স্ট্র (UMS) এর ব্যবহার

ডা. মো. আজাহার: গবাদিপশু বিশেষ করে গরুর খাদ্য হিসেবে আমাদের দেশে শুকনা খড়ের ব্যবহার ব্যাপক। কিন্তু এতে প্রয়োজনীয় পরিমাণে আমিষ, শর্করা বা খনিজ উপাদান থাকে না। এদিকে খাবারের দামও ক্রমান্বয়ে বেড়েই চলেছে। রোগ-ব্যাধির প্রকোপও কম নয়। তাই লাভজনকভাবে গবাদিপশু পালন করা আজকাল চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ সমস্যা সমাধানে ইউরিয়া মোলাসেস স্ট্র (UMS) এর ব্যবহার অতুলনীয়।

যে কারনে ইউরিয়া মোলাসেস স্ট্র খাওয়াবেন:
আমিষের উৎস হিসেবে ইউরিয়া, শর্করা ও খনিজের উৎস হিসেবে মোলাসেসের (চিটা গুড়)। ইউরিয়া মোলাসেস স্ট্র গরু সাধারণত আগ্রহের সাথে খেয়ে থাকে। এতে ওজন ও উৎপাদন উভয়ই বৃদ্ধি পায়। সর্বোপরি এটি একটি লাভজনক ও সহজ প্রযুক্তি। এর কম খরচে বেশি মাংস বৃদ্ধির ক্ষমতাও অসাধারণ।


তৈরিতে যা যা দরকারঃ
১00 কেজি ইউরিয়া মোলাসেস স্ট্র তৈরির জন্য নিম্নোক্ত উপাদান গুলো জরুরি-
১. খড় – ৮২%
২. চিটাগুড়- ১৫%
৩. ইউরিয়া- ৩ %
৪.পানি – পরিমানমত।
বিঃদ্রঃ কেউ ২০, ৪০, ৬০, ৮০ কেজি তৈরি করলেও এই রেশিয় % মেনে করতে পারবেন।

যেভাবে তৈরি করবেন:
প্রথমেই পরিমাণমতো খড়, মোলাসেস ও ইউরিয়া মেপে নিতে হবে। এরপর পরিষ্কার পানির সঙ্গে ইউরিয়া এমনভাবে মেশাতে হবে যেন সম্পূর্ণ পানিতে মিশে যায়। এর পর ইউরিয়া মেশানো পানিতে চিটাগুড় গুলিয়ে ফেলতে হবে।
পলিথিন বিছানো বা পাকা মেঝেতে শুকনো খড় সমভাবে বিছিয়ে রেখে তার ওপর ইউরিয়া মোলাসেস দ্রবণ ধীরে ধীরে ঝরনা বা হাত দিয়ে ছিটিয়ে দিতে হবে। প্রয়োজনে খড়কে উল্টিয়ে দিতে হবে যাতে সমস্ত খড় দ্রবণ শুষে নিতে পারে। এভাবে স্তরে স্তরে খড় সাজিয়ে তাতে সমঅনুপাতে ইউরিয়া মোলাসেস দ্রবণ মিশিয়ে নিতে হবে।

প্রাণিকে খাওয়ানোর পরিমাণঃ
গরুকে তার ইচ্ছেমতো খেতে দেওয়া যাবে। তবে প্রথমদিকে অল্প অল্প করে দিয়ে অভ্যাস করে নিতে হবে। ইউরিয়ার পরিমাণ যেন বেশি না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। কারণ ইউরিয়া বেশি হলে বিষক্রিয়া ঘটতে পারে। ইউরিয়া মোলাসেস স্ট্র একবার তৈরি করে ২/৩ দিনও খাওয়ানো যায়। খাওয়ানোর পর পরই বেশি পরিমাণ পানি পান করতে দেওয়া উচিত নয়।

যাদের খাওয়ানো যাবে এই স্ট্র:
ইউরিয়া মোলাসেস স্ট্র বাছুর, বাড়ন্ত গরু, দুগ্ধবতী বা গর্ভবতী গরু, মহিষ ও ছাগলকেও অনায়াসে খাওয়ানো যায়।

About Editor

Check Also

পেঁপে চাষের বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি…

পেঁপে বাংলাদেশের একটি অন্যতম প্রধান ফল। কাঁচা পেঁপে সবজি হিসেবে এবং পাকা পেঁপে ফল হিসেবে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *