Wednesday , October 17 2018
সর্বশেষ
Home / প্রথম পাতা / আমার ক্যাম্পাস / শেকৃবিতে হাইড্রোফনিক চাষের নতুন দ্বার উন্মোচন!

শেকৃবিতে হাইড্রোফনিক চাষের নতুন দ্বার উন্মোচন!

মোঃমিজানুর রহমান, শেকৃবি প্রতিনিধিঃ হাইড্রোফনিক হলো মৃত্তিকাবিহীন জল চাষ বিদ্যা। মাটি ছাড়া অন্য যেকোন মাধ্যমে সব্জি,ফল,ফুল,ষাস ইত্যাদি চাষ করাকে হাইড্রোফনিক পদ্ধতি বলে।এটি একটি অত্যাধুনিক চাষাবাদের পদ্ধতি।

চীন,তাইওয়ান,জাপান,থাইল্যান্ড,সিঙ্গাপুর,মালেশিয়া সহ বিশ্বের উন্নত দেশ এই পদ্ধতিতে চাষ করে আসছে।বাংলাদেশেও শুরু হয়েছে এই পদ্ধতিতে চাষাবাদ ।এই পদ্ধতি কোন মাটি ব্যবহার করা হয় না তাই শহরে অধিকাংশ বাড়িতে এই পদ্ধতি ব্যবহার করে টাটকা শাক-সব্জি,ফল,ফুল ইত্যাদি উৎপাদন করা সম্ভব।
এ পদ্ধতিতে চাষের জন্য গাছের ১৬টি প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান নিয়ে বাংলাদেশের আবহাওয়া উপযোগী একটি দ্রবণ তৈরী করেছেন শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) সহযোগী অধ্যাপক ড. জাহিদুর রহমান। উদ্ভাবিত এ দ্রবণটি ব্যবহার করে ৯ গুণ বেশি ফলন পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

মঙ্গলবার (২৭ র্মাচ) সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনে ‘বাংলাদেশে টেকসই হাইড্রোফনিক্স ফসল উৎপাদন প্রযুক্তি’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।
মূল প্রবন্ধ উপস্থাপক অধ্যাপক ড. জাহিদুর রহমান বলেন, ‘উদ্ভাবিত পুষ্টি দ্রবণ ব্যবহার করে টমেটো, ক্যাপসিকাম, মরিচ, করলা, লেটুশ, শশা, কলা, ঢেড়স ও বিভিন্ন শাক জাতীয় সবজির ফলন মাঠের চেয়ে প্রায় ৮ থেকে ১০ গুণ বেশি পাওয়া গেছে আমাদের গবেষণায়।’

হাইড্রোফনিক্স গবেষক জাহিদুর রহমান এগ্রি ভিউকে বলেন, ‘হাইড্রোফনিক্স পদ্ধতিতে ফসল উৎপাদন খুবই লাভজনক। কিন্তু হাইড্রোফনিক্স পদ্ধতিতে চাষের উপযোগী একটি কাঠামো তৈরী একটু ব্যয় বহুল। বিশটি গাছ চাষ করা যাবে এমন কাঠামো দাঁড় করাতে প্রায় বিশ থেকে পঁচিশ হাজার টাকা খরচ হবে। তবে, এসব কাঠামো প্রায় বিশ থেকে ত্রিশ বছর পর্যন্ত ব্যবহার করা যাবে। আবার ফলনও অনেক বেশি হয়।’

কৃষি অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. অনোয়ারুল হক বেগ, বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত হাইড্রোফনিক্স চাষীরা।

About Mostafizur Rahman

Check Also

ক্ষুধামুক্ত সমাজ গঠনে চাই কৃষিবান্ধব পদক্ষেপ ও খাদ্য অধিকার আইন চাই

বর্তমানে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) অর্জিত হচ্ছে ৭% এর উপরে। বিগত মার্চ মাসে জাতিসংঘ বাংলাদেশকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *