Sunday , December 16 2018
সর্বশেষ
Home / প্রথম পাতা / আমার ক্যাম্পাস / ব্রুসেলোসিসের কারণে প্রতিবছর প্রাণিসম্পদে ৬০ মিলিয়ন আর্থিক ক্ষতি

ব্রুসেলোসিসের কারণে প্রতিবছর প্রাণিসম্পদে ৬০ মিলিয়ন আর্থিক ক্ষতি

বাকৃবি প্রতিনিধি
ব্রুসেলোসিস একটি ব্যাকটেরিয়াঘটিত সংক্রামক রোগ। রোগটি প্রাণি থেকে মানুষে এবং মানুষ থেকে প্রাণিতে স্থানান্তিরত হয়। মানুষ, গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া, শূকর , কুকুর এ রোগে আক্রাšত হয়ে থাকে। আক্রান্ত পশুর কাঁচা দুধ, স্বল্প জাল দেওয়া দুধ খাওয়ার মাধ্যমে অথবা নির্গত পদার্থ বা আক্রান্ত প্রাণির প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ সংস্পর্শে প্রাপ্ত বয়ষ্ক মানুষ ও শিশুদের এ রোগ হয়। ফলে একদিকে যেমন প্রাণিসম্পদের ক্ষতি সাধন করে অন্যদিকে মানুষে সংক্রমিত হয়ে অকাল মৃত্যু ঘটে। ব্রুসেলোসিসের কারণে প্রতিবছর ৬০ মিলিয়ন আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে।

শনিবার সকাল ১০টায় মেডিসিন বিভাগে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. সিদ্দিকুর রহমান এসব কথা জানান। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মেডিসিন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. মো. আরিফুল ইসলাম।

পৃথিবীর বিভিন্ন উন্নত দেশ এছাড়া আমাদের পাশ্ববর্তী দেশ ভারত ও পাকিস্তান ব্রুসেলোসিস রোগের টিকা ব্যবহার করলেও আমাদের দেশে এখন পর্যন্ত কোন উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। এজন্য প্রধান গবেষক অধ্যাপক ড. মো. সিদ্দিকুর রহমানের নেতৃত্বে কৃষি গবেষণা ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় তিন বছর মেয়াদী ‘লাইভস্টক ও হিউম্যান ব্রুসেলোসিসঃ মলিকুলার ডায়গনোসিস, চিকিৎসা ও প্রতিকার নামক প্রকল্পের অধীনে রোগের নির্দিষ্ট প্রজাতি নির্ণয়, চিকিৎসা ও প্রতিকার নিয়ে গবেষণা পরিচালিত হবে।

সংবাদ সম্মেলন শুরুর আগে ব্রুসেলোসিস রোগের মলিকুলার ডায়গনোসিস, চিকিৎসা ও প্রতিকারের উদ্দেশ্যে ‘লাইভস্টক অ্যান্ড হিউম্যান ব্রুসেলোসিস’ নামক একটি গবেষণাগারের শুভ উদ্বোধন করা হয়। গবেষণাগারটি উদ্বোধন করেন কৃষি গবেষণা ফাউন্ডেশনের প্রোগ্রাম ডাইরেক্টর (লাইভস্টক ও ফিসারীজ) ড. কাজী এম. কমরউদ্দিন। এটি বাংলাদেশের প্রথম গবেষণাগার যা ব্রুসেলোসিস নিয়ে উচ্চতর গবেষণা করার সুযোগ সৃষ্টি করবে।

পরে সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন বিভাগীয় সম্মেলন কক্ষে ব্রুসেলোসিসের উপর এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালায় মেডিসিন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. মো. আরিফুল ইসলামের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়টির উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. জসিমউদ্দিন খান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভেটেরিনারি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. প্রিয় মোহন দাস, শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. এ. এস মাহফুজুল বারী।

কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন প্রধান গবেষক অধ্যাপক ড. মো. সিদ্দিকুর রহমান। এসময় ভেটেরিনারি অনুষদের শিক্ষক, গবেষক, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের শিক্ষক, গবেষক, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর রিমাউন্ট ভেটেরিনারি ফামর্সকোরের কর্মকর্তা, মানুষ ও গবাদিপশুর ঔষধ ও টিকা উৎপাদন ও বাজারজাতের সাথে জড়িত কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান গবেষক অধ্যাপক ড. মো. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, আমি ব্রুসেলোসিস নিয়ে গত ২০ বছর ধরে কাজ করছি। ব্রুসেলোসিস এর কয়েকটি প্রজাতি রয়েছে আমরা প্রথমে শনাক্ত করবো কোন প্রজাতি দায়ী। এরপর চিকিৎসা পদ্ধতি, প্রতিকার ও প্রতিরোধ ব্যবস্থা নিয়ে কাজ করবো। এ গবেষণার মাধ্যমে ৭জন পিএইচডি ডিগ্রী অর্জন করবে বলেও জানান তিনি।

About Mostafizur Rahman

Check Also

জাতীয় স্মৃতিসৌধে গবিসাসের শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পণ

অনিক অাহমেদ, গণ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি: মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্য …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *