Wednesday , November 14 2018
সর্বশেষ
Home / ক্যাম্পাস / খুবি’তে ‘বাংলাদেশ ম্যানগ্রোভ পোল্ডার্স ফর শ্রিম্প একোয়াটিক প্রোডাক্টিভিটি শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

খুবি’তে ‘বাংলাদেশ ম্যানগ্রোভ পোল্ডার্স ফর শ্রিম্প একোয়াটিক প্রোডাক্টিভিটি শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

নূর-ই-কুতুবুল আলম রেজা, খুবি প্রতিনিধিঃ খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের উপকূলীয় এলাকার ম্যানগ্রোভ ও চিংড়ি চাষের উৎপাদন বৃদ্ধি নিয়ে ‘বাংলাদেশ ম্যানগ্রোভ পোল্ডার্স ফর শ্রিম্প একোয়াটিক প্রোডাক্টিভিটি’ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

গত ২৭ ফেব্রুয়ারি সকাল ১১টায় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য জগদীশ চন্দ্র বসু একাডেমিক ভবনের সাংবাদিক লিয়াকত আলী অডিটোরিয়ামে সোলিডারিডেড নেটওয়ার্ক এশিয়া, নেদারল্যান্ডসের ওয়াগিনিনজেন ইউনিভার্সিটি এবং খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ত্রিপক্ষীয় উদ্যোগে আয়োজিত এ কর্মশালায় চিফ প্যাট্রন হিসেবে বক্তব্য রাখেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান। প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন খুলনা বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞান স্কুলের ডিন প্রফেসর এ কে ফজলুল হক, খুলনা সার্কেলের কনজারভেটর অব ফরেস্ট মোঃ আমীর হোসেন চৌধুরী, খুলনা বিভাগীয় মৎস্য মাননিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা প্রফুল্ল কুমার সরকার।

সোলিডারিডেড বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার এবং গবেষণা প্রকল্প প্রধান সেলিম রেজা হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ কর্মশালায় প্রকল্পের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন প্রকল্পের কনসোর্টিয়াম পার্টনার খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের এফএমআরটি(ফিশারিজ এন্ড মেরিন রিসোর্স টেকনোলজি) ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. মোঃ নাজমুল আহসান এবং ওয়াগিনিনজেন ইউনিভার্সিটির ড. রোয়েল এইচ বোসমা। কর্মশালায় প্রকল্পের বিভিন্ন বিষয়ের উপর প্রশ্নোত্তর পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।

এ গবেষণা প্রকল্পের খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় পার্টের দুইজন উপ-প্রধান গবেষক হলেন ফউটে (ফরেস্ট্রি এন্ড উড টেকনোলজি) ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. মোঃ নজরুল ইসলাম ও এফএমআরটি ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. মোসাম্মাৎ মুসলিমা খাতুন। এর আগে সকালে উপাচার্যের কার্যালয়ে ওয়াগিনিনজেন ইউনিভার্সিটি এবং খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে এক সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। এই সমঝোতার স্মারক স্বাক্ষরের ফলে উভয় বিশ্ববিদ্যালয় উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার পারস্পারিক বিভিন্ন দিক নিয়ে কাজ করার সুযোগ সৃষ্টি হবে। এরই ধারাবাহিকতায় প্রথম পর্যায়ে ‘বাংলাদেশ ম্যানগ্রোভ পোল্ডার্স ফর শ্রিম্প একোয়াটিক প্রোডাক্টিভিটি’ শীর্ষক গবেষণা প্রকল্পের উপর কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

উপকূলীয় এলাকার পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়িবাধের মধ্যে ম্যানগ্রোভ এবং চিংড়ি চাষের উৎপাদন বৃদ্ধি নিয়ে যৌথ গবেষণা প্রকল্পের কাজ শেষ হলে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়ি বাধের মধ্যে পরিকল্পিত উপায়ে চিংড়ির অধিক উৎপাদন ও একইসাথে উপকূলীয় ম্যানগ্রোভ বন সম্প্রসারণের মাধ্যমে নতুন চাষ পদ্ধতির উদ্ভাবন হতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে।

About Editor

Check Also

পেঁপে চাষের বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি…

পেঁপে বাংলাদেশের একটি অন্যতম প্রধান ফল। কাঁচা পেঁপে সবজি হিসেবে এবং পাকা পেঁপে ফল হিসেবে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *