Sunday , December 16 2018
সর্বশেষ
Home / ক্যাম্পাস / সিকৃবিতে আড়ম্বরপূর্ন ভাবে এগ্রিকালচারাল ইকনোমিকস ও বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের বনভোজন অনুষ্ঠিত

সিকৃবিতে আড়ম্বরপূর্ন ভাবে এগ্রিকালচারাল ইকনোমিকস ও বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের বনভোজন অনুষ্ঠিত

রওনক আফরোজ,সিকৃবি :

যেখানে মিলবে বিশাল আকাশ
উথলে যাওয়া পানির ঢল,
সেখানেই চলরে বন্ধু
তবে সেখানেই চল……

ক্লাস-পরীক্ষার একঘেয়েমিতে জীবন যখন পিষ্ট তখন সবাই চায় দূরে কোথাও হারিয়ে যেতে । আর ক্লাস- পরীক্ষা থেকে কোনো একটা দিন দূরে থাকার ব্যাকুলতায় গত শনিবার আড়ম্বরপূর্ণ ভাবে অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অর্থনীতি ও ব্যাবসায় শিক্ষা অনুষদের অনুষদীয় বনভোজন । বনভোজনের স্পট হিসেবে নির্ধারন করা হয় জাফলং এবং নলজুড়ি রিসোর্ট।

শিক্ষার্থী দের পড়াশোনার ফাঁকে সামান্য রিফ্রেশমেন্ট এর প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেই অনুষদের ডিন , প্রফেসর ড.জসীম উদ্দিন আহম্মদ এ উদ্যোগ গ্রহণ করেন।

বনভোজনের আয়োজনের দায়িত্বে ছিলেন অনুষদেরই শিক্ষকবৃন্দ ও অনুষদীয় ছাত্রসমিতির সদস্যরা। আহবায়ক কমিটিতে ছিলেন প্রফেসর ড. মো: শাহজাহান মজুমদার, মায়মুনা বেগম, শারমিন আক্তার,সুব্রত কৈরী,ঈষিতা দেব ও নূর মুজাহিদ, ইশিতা দেব । এছাড়াও ছাত্র সমিতির সহ-সভাপতি রেজাউল সাগরের নেতৃত্বে অন্যান্য সদস্যরা ছিলেন সার্বিক সহযোগিতায়।

জাফলং এর উদ্দেশ্যে ক্যাম্পাস থেকে বাস ছাড়ে ৯:৩০ টায় এবং সেখানে পৌছায় ১২ টায়।
৩ টায় সেখান থেকে থেকে নলজুড়ি জেলা প্রশাসক এর ডাক বাংলোয় যাওয়া হয় দুপুরের খাবার সহ সাংস্কৃতিক সন্ধ্যার উদ্দেশ্যে । সেখানে সঞ্চালনার দায়িত্ব পালন করেন প্রভাষক নূর মুজাহিদ এবং ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে আশিক রাহমান ও ফাহমিদা।

দুপুরের খাবারের পর বিকেলে শিক্ষক দের হাড়ি ভাঙা, শিক্ষিকা ও ছাত্রীদের জন্য শিক্ষার্থীদের মধ্যে পিলো পাসিং এবং ছেলেদের মোরগ লড়াই খেলার আয়োজন করা হয়। এসময় বাঁধ ভাঙা উচ্ছাসে মেতে উঠে প্রত্যেকটা শিক্ষার্থী ও শিক্ষক শিক্ষিকা মহোদয় !

ছবি : শিক্ষকদের মধ্যে চলছে হাড়ি ভাঙা খেলা

ছবি : শিক্ষিকা ও মেয়ে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে পিলো পাসিং খেলার একটি মুহূর্ত

এছাড়াও পূর্বে বিক্রীত লটারির বিজয়ী দের নাম ঘোষণা করা হয় তখন। টান টান উত্তেজনার মধ্যে ৩০ জন বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হয়,এবং সবশেষে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়।
পুরষ্কার বিতরণ কালে ডিন স্যার জানান “সামনের বার থেকে প্রতিবার ই এমন বনভোজন এর আয়োজন করা হবে!”

প্রফেসর ড. জীবন কৃষ্ণ সাহা বলেন”আমার ইন্ডিয়া যাওয়ার কথা ছিলো,তোমাদের সাথে আসব বলে যাওয়া হয়নি”
তিনি আরো বলেন,সামনের বার থেকে যেনো খাবার কিনে না নিয়ে স্পটেই রান্না করার ব্যাবস্থা করা হয়।

শিক্ষক শিক্ষার্থী সহ ৫ টি ব্যাচের মোট ২১৯ জন অংশগ্রহণ করে উক্ত বনভোজনে।
সারাদিনের ক্লান্তি শেষেও একটা প্রশান্তি নিয়ে ক্যাম্পাসের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু হয় সন্ধ্যা ৭ টায়।
রাত ৯ টায় ক্যাম্পাসে উপস্থিত হয় ৫ টি বাস এবং এর মাধ্যমেই শেষ হয় অনুষদীয় বনভোজন।
প্রতিদিনকার ক্লান্তির মাঝেও এদিনের স্মৃতি ঠোটের কোনায় এক চিলতে হাসি ফুটিয়ে তুলবে প্রত্যেকের!

About Anik Ahmed

Check Also

শেরপুরে কৃতি শিক্ষার্থী এবং মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ডিপ্লোমা কৃষিবিদদের সংবর্ধনা প্রদান

শেরপুরে কৃতি শিক্ষার্থী এবং মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ডিপ্লোমা কৃষিবিদদের সংবর্ধনা দিয়েছে শেরপুর জেলা ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *